মহামারীর আবহে অনলাইন ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুন সুবিধা প্রদান করতে অগ্রসর হল বিশিষ্ট সংস্থা ডিটিডিসি

4
মহামারীর আবহে অনলাইন ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুন সুবিধা প্রদান করতে অগ্রসর হল বিশিষ্ট সংস্থা ডিটিডিসি

করোনা আবহে বহু মানুষ বেরোজগার হয়ে পড়েছেন। অনেক কর্পোরেট সংস্থা কর্মী ছাঁটাই করেছে। বেশকিছু সংস্থায় কর্মীদের বেতন অর্ধেক করে দেওয়া হয়েছে। এমতাবস্থায় বিগত সাত মাসের মধ্যে অনেকেই চাকরি ছেড়ে ব্যবসায় মনোনিবেশ করেছেন। বিশেষ করে অনলাইন ব্যবসাগুলি মহামারীর আবহে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনলাইন ব্যবসার ক্ষেত্রে সুবিধা প্রদান করতে অগ্রসর হয়েছে বিশিষ্ট সংস্থা ডিটিডিসি।

সম্প্রতি, ডিটিডিসি তাদের ব্যবসা সম্প্রসারণ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ডিটিডিসি তাদের আউট লেট খোলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। বর্তমানে, ডিটিডিসির তরফ থেকে দেশের ১২,৮০০টি পিনকোড এলাকায় চিঠিপত্র চিঠিপত্র, কুরিয়ার, কার্গো সরবরাহ করার দায়িত্ব নিয়েছে। তবে ২০২২ সালের মধ্যেই এই সংখ্যাটা বাড়িয়ে ১৮,৫০০ করতে চায় ডিটিডিসি।

তাই, ইচ্ছুক ব্যবসায়ীদের জন্য ফ্রাঞ্চাইজির অফার দিচ্ছে ডিটিডিসি। সংশ্লিষ্ট সংস্থা সূত্রে খবর, ৫০ হাজার টাকার প্রাথমিক বিনিয়োগের বিনিময়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি পাওয়া যেতে পারে। এ, বি, সি বিভাগের শহরগুলিতে ফ্র্যাঞ্চাইজি খোলার অনুমতি পাওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে শুধু ফ্র্যাঞ্চাইজি সেট আপের সময় টাকা লাগবে। তারপর শুল্ক বাবদ আর কোনো টাকা নেওয়া হবে না।

ডিটিডিসির তরফ থেকে প্রকাশিত নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, এ বিভাগের শহরের জন্য দেড় লাখ টাকা, বি বিভাগের শহরের জন্য ১ লাখ টাকা এবং সি বিভাগের জন্য ৫০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। আবেদন করার জন্য ইচ্ছুক ব্যাক্তিকে ভোটার আইডি বা ড্রাইভিং লাইসেন্স, রেশন কার্ড, ল্যান্ডলাইন টেলিফোন বিল, পাসবুক এবং রেফারেন্স লেটার ডকুমেন্ট হিসেবে জমা দিতে হবে।