পাহাড়ের দুর্গম পথের পাশাপাশি এবার জলপথেও টহল দিচ্ছে চীনা জাহাজ, এমনটাই ধরা পড়লো উপগ্রহ চিত্রে

6
পাহাড়ের দুর্গম পথের পাশাপাশি এবার জলপথেও টহল দিচ্ছে চীনা জাহাজ, এমনটাই ধরা পড়লো উপগ্রহ চিত্রে

বিগত বেশ কয়েক মাস ধরেই লাদাখের দুর্গম পার্বত্য অঞ্চল দিয়ে ভারতীয় ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশ চালিয়ে ভারতীয় ভূখণ্ড আগ্রাসনের চেষ্টা চালাচ্ছে চীনা ড্রাগনের দল। কিন্তু ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর প্রচেষ্টায় তাদের সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হচ্ছে। তবুও সীমান্ত আগ্রাসনের সংকল্প থেকে বিরত নয় চীনা পিপলস লিবারেশন আর্মির সদস্যরা। পাহাড়ের দুর্গম পথের পাশাপাশি এবার জলপথেও টহল দিচ্ছে চীনের জাহাজ।

চীনের আগ্রাসী মনোভাব সমুদ্রপথেও বেশ টের পাওয়া যাচ্ছে। সাম্প্রতিক উপগ্রহ চিত্র থেকে জানা যাচ্ছে ভারত মহাসাগর ও বঙ্গোপসাগরে চীনা নৌসেনার একাধিক জাহাজ টহল দিচ্ছে। ভারত মহাসাগরে সুমাত্রার পশ্চিম অংশে নজরদারি চালাচ্ছে চীনা নৌসেনা বিভাগের “শিয়াং ইয়াং হং ০৩” নামক জাহাজটি। “ওপেন সোর্স ইন্টেলিজেন্স” নামক একটি প্রতিরক্ষা বিশ্লেষণী সংস্থার থেকে সম্প্রতি এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানা গিয়েছে।

চীনের “শিয়াং ইয়াং হং ০৩” জাহাজের বিরুদ্ধে গোপনে ইন্দোনেশিয়ার জলসীমায় ঢুকে পড়া এবং ভারত মহাসাগরের সমুদ্রতলের নকশা তৈরি করার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। সমুদ্রের তলদেশ দিয়ে সাবমেরিন চলাচলের পথ খুঁজছে চীন। ভারত মহাসাগরের তলদেশের ভৌগোলিক অবস্থান সম্পর্কে খুঁটিনাটি তথ্য জেনে নিচ্ছে চীন। প্রধানত যুদ্ধের জন্যেই এমন প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন, এমনটাই অনুমান করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে চীনের দাবি, জলদস্যুদের প্রতিহত করতেই নাকি জলপথে নজরদারি চালানো হচ্ছে। তবে সমুদ্রপথে যেভাবে বিপুল পরিমাণে রণতরী মোতায়েন করা হচ্ছে তাতে যুদ্ধের সম্ভাবনাই প্রবল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। চীনের অত্যাধুনিক মিসাইল সমন্বিত যুদ্ধজাহাজ গুলি অবিরাম জলপথে টহল দিয়ে বেড়াচ্ছে। চীনের এমন আগ্রাসী মনোভাব স্বভাবতই বেশ উদ্বেগজনক বলেই মনে করা হচ্ছে।