এবার বিয়ে করতে হলে জানাতে হবে জীবিকা, উপার্জন সম্বন্ধিত তথ্য! নতুন আইন আনছে অসম সরকার

7
এবার বিয়ে করতে হলে জানাতে হবে জীবিকা, উপার্জন সম্বন্ধিত তথ্য! নতুন আইন আনছে অসম সরকার

“লাভ জিহাদ”, প্রেম-ভালবাসার দোহাই দিয়ে বিবাহের নামে জোর করে ধর্মান্তরিতকরণ। দেশের প্রতিটি রাজ্যের মহিলারাই কমবেশি এই ষড়যন্ত্রের শিকার হচ্ছেন। বিগত কয়েকদিনের বেশ কিছু ঘটনার জেরে বিজেপি শাসিত রাজ্য গুলি এই মুহূর্তে “লাভ জিহাদ” রুখতে কড়া আইন প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সূত্রের খবর, মধ্যপ্রদেশ, উত্তর প্রদেশের মতো বেশ কিছু রাজ্যে ইতিমধ্যেই আইনের খসড়া তৈরি হয়ে গিয়েছে। অন্যান্য রাজ্যগুলিও বর্তমানে আইনের খসড়া প্রস্তুত করতে ব্যস্ত।

লাভ জিহাদের বিপক্ষে যে কয়টি রাজ্য রয়েছে সেই প্রত্যেকটি রাজ্যেই বিবাহের জন্য ধর্ম পরিবর্তন করতে গেলে আগে থেকে সরকারের কাছে নোটিশ দেওয়া বাধ্যতামূলক করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে। তবে বিজেপি শাসিত অপর একটি রাজ্য আসাম অবশ্য আরো একধাপ এগিয়ে লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পরিকল্পনা করছে। অসমের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা জানিয়েছেন, ধর্ম পরিবর্তন করে বিবাহ করতে গেলে পুরুষদের বেশ কিছু তথ্য পেশ করতে হবে।

গত সোমবার অসমের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানালেন, বিবাহের পূর্বে পুরুষদের হবু স্ত্রীর কাছে তাদের ধর্মের পাশাপাশি জীবিকা, উপার্জন সম্বন্ধিত সমস্ত তথ্য জানাতে হবে। উল্লেখ্য, এই নতুন নিয়ম শুধুই যে ধর্ম পরিবর্তন করে বিবাহের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে এমনটা নয়। বিবাহের প্রতিটি ক্ষেত্রেই পুরুষদের তাদের উপার্জন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য মহিলাদের জানাতে হবে, এমন নিয়মই আনছে অসম সরকার। সরকারের আশা, এর ফলে মহিলাদের ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি পাবে।

আসামের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বিবাহের ক্ষেত্রে প্রতিটি বিষয়ে স্বচ্ছতা রাখা জরুরি। এই কারণেই এই নতুন নিয়ম আনা হবে। “স্বচ্ছতা না থাকলে বিয়ে করা উচিত নয়”, এমনই মত প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সরকারের তরফ থেকে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিবাহের পূর্বে প্রত্যেক মহিলাকে একটি করে ফর্ম দেওয়া হবে। সেই ফর্ম হবু স্বামীকে দেবেন ওই মহিলা। ফর্মে উল্লেখিত সকল বিষয়ের সঠিক জবাব দিতে হবে তাকে। তারপরেই মিলবে বিবাহের অনুমতি।