পিতৃপক্ষতে পূর্বপুরুষকে স্মরণ করে এই কাজ করলে পিতৃ দোষ কেটে যায়

31
পিতৃপক্ষতে পূর্বপুরুষকে স্মরণ করে এই কাজ করলে পিতৃ দোষ কেটে যায়

চলতি বছরে ১০ই সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে পিতৃ পক্ষ এবং প্রতিপক্ষ চলবে আগামী ২৫শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। ২৫শে সেপ্টেম্বর মহালয় যেদিন এই পিতৃপক্ষের অবসান হবে এবং সূচনা হবে দেবীপক্ষের। ১৫ দিন ধরে পিতৃপক্ষ চলবে ভাদ্র মাসের পূর্ণিমা তিথি থেকে আশ্বিন মাসের কৃষ্ণপক্ষের অমাবস্যা পর্যন্ত থাকবে।

পিতৃপক্ষের সময় এরপরেই শুরু হয়ে যাবে দেবীপক্ষ। এই পিতৃপক্ষতে পূর্বপুরুষকে স্মরণ করে এবং তাদের সন্তুষ্ট করার জন্য তর্পণ পিন্ডদান অথবা শ্রাদ্ধ করা হয়ে থাকে। শাস্ত্রমতে মনে করা হয় যে, এই সময়ে মর্তে পূর্বপুরুষেরা নেমে আসেন এবং তার বংশধরদের হাতে জল গ্রহণ করেন এবার আসুন জেনে নেওয়া যাক চলতি বছরেরই পিতৃপক্ষের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের তিথি তর্পণের সময় সম্পর্কে।
চলতি বছরে পিতৃপক্ষের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের দ্বিতীয় অনুযায়ী পড়েছে

১০ই সেপ্টেম্বর পূর্ণিমার শ্রাদ্ধ।

১১ই সেপ্টেম্বর প্রতিপদ শ্রাদ্ধ।

১১ই সেপ্টেম্বর দ্বিতীয়া শ্রাদ্ধ।

১২ই সেপ্টেম্বর তৃতীয়া শ্রাদ্ধ‌।

১৩ই সেপ্টেম্বর চতুর্থী শ্রাদ্ধ।

১৪ই সেপ্টেম্বর পঞ্চমী শ্রাদ্ধ এবং মহা ভরণী।

১৫ ই সেপ্টেম্বরষষ্ঠী শ্রাদ্ধ।

১৬ই সেপ্টেম্বরসপ্তমী শ্রাদ্ধ।

১৮ ই সেপ্টেম্বর অষ্টমী শ্রাদ্ধ।

১৯শে সেপ্টেম্বর নবমী শ্রাদ্ধ।

২০শে সেপ্টেম্বর দশমী শ্রাদ্ধ।

২১শে সেপ্টেম্বর একাদশী শ্রাদ্ধ।

২২ শে সেপ্টেম্বর দ্বাদশী শ্রাদ্ধ।

২৩শে সেপ্টেম্বর ত্রয়োদশী শ্রাদ্ধ এবং মাঘ শ্রাদ্ধ।

২৪ শে সেপ্টেম্বর চতুর্দশী শ্রাদ্ধ।

২৫ শে সেপ্টেম্বর সর্বোপরি মাবস্যা এবং মহালায়া। পিতৃপক্ষের এই সময়টিকে বলা হয় শ্রাদ্ধ পক্ষ। এই সময়তে মনে করা হয় যে পূর্ব পুরুষদের জন্য শ্রাদ্ধকর্ম এবং তর্পণ করা হয় যার ফলে পূর্বপুরুষেরা প্রসন্ন হন এবং তাদের বংশধরদের আশীর্বাদ করেন।

পূর্বপুরুষদের এই আশীর্বাদে আগামী দিনের সমস্ত বাধা বিপত্তি কেটে যায়। মনে করা হয় যে পিতৃপক্ষের এই সময়ে যদি দান, পূর্ণ করা হয় তবে পিতৃ দোষ কেটে যায়। পিতৃপক্ষের কিছু কাজ করা উচিত নয়।

যারা পিতৃপক্ষের সময়ে শ্রাদ্ধকর্ম করবেন তাদের এই সময়ে নখ চুল দাড়ি কাটা উচিত নয়।

পিতৃপক্ষের এই কটা দিনে সাবান তেল না মেখে স্নান করা উচিত।

কোনরকম প্রসাধনী এবং পারফিউম ব্যবহার করা উচিত নয়।

এই দিন গুলিতে আমিষ খাবার খাওয়া উচিত নয়।

পিতৃপক্ষে তুলসী পাতা খাওয়া ঠিক নয়।

পূর্বপুরুষের উদ্দেশ্যে যে সমস্ত খাবার দান করা হবে সেগুলি পুজোর পরে কাক অথবা গরুকে খাওয়ানো উচিত। পিতৃপক্ষে কোন শুভ কাজ করা ঠিক নয় পিতৃপক্ষের বাগদান, মুন্ডন, বিবাহ, গৃহপ্রবেশ এই সমস্ত মাঙ্গলিক কাজ করা ঠিক নয়।