শেষ জন্মদিনে অনেকটাই মিস করছিলেন পরিবারকে! হৃদয়ে বড় যন্ত্রণা নিয়েই বিদায় নিলেন মারাদোনা

16
শেষ জন্মদিনে অনেকটাই মিস করছিলেন পরিবারকে! হৃদয়ে বড় যন্ত্রণা নিয়েই বিদায় নিলেন মারাদোনা

গতকাল বুধবার ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনার বিদায় বেলা। সকাল থেকেই তার শরীরটা ভাল ছিলনা, সকাল ১০ টায় ঘুম থেকে উঠেছিলেন কিন্তু বারবার গিয়ে বিছানায় শুয়ে পড় ছিলেন তিনি। আর তার এই অবস্থা দেখে কিছুটা হলেও আন্দাজ করতে পেরেছিল তার অভিভাবক সম দুজন। এরপরই তারা তৎক্ষণাৎ যোগাযোগ শুরু করে দেন মারাদোনার আত্মীয়-স্বজন ডাক্তার আইনজীবী ও তার তিন মেয়ের সাথে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে তার বাড়ির সামনে এসে পৌঁছায় হাফডজন অ্যাম্বুলেন্স, প্রবল চেষ্টা করে সবাই। যদি শেষ চেষ্টা করে ফিরিয়ে আনা যায় ফুটবলের রাজপুত্রকে, কিন্তু হায়। শেষ পর্যন্ত হেরে যায় সবাই।

সম্প্রতি আর্জেন্টিনার সংবাদপত্রের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, জীবনের শেষ দিকটায় মানসিক বিষাদগ্রস্ত অবস্থায় ছিলেন তিনি। সময়ের সাথে সাথে তার মানসিক অবস্থা এতটাই অবনতি ঘটে ছিল যা বলার মতো না। একটা সময় তার মনোবিদরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তাকে কিউবা পাঠানোর। কারণ সেখানেই ছিল তার প্রিয় বন্ধু ফিদেল কাস্ত্রো। সব ব্যবস্থা হয়ে গিয়েছিল এমনকি ফিদেল কাস্ত্রোর ছেলে টনিও মারাদোনাকে আহ্বান জানিয়েছিল। কিউবা ছিল মারাদোনার ভালোবাসার একটি জায়গা, কিন্তু কিউবা যাওয়ার হয়নি তার।

মারাদোনার শেষ ৬০ তম জন্মদিন যেখানে তিনি তার পরিবার সন্তানদের নাতি-নাতনিদের অনেকটাই মিস করছিলেন। আর সেটা তিনি নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন। কেননা মারাদোনার মতো ব্যক্তিত্ব নিজের ষাট তম জন্মদিনে অঝোরে কেদেছিলেন ও সবার সম্মুখে বলেছিলেন, আজ আমি আমার পরিবারকে মিস করছি। মা তুমি হয়তো উপর থেকে আমাকে দেখে অনেকটাই গর্ব বোধ করছ। আসলে আর্জেন্টিনার মিডিয়ার তরফ থেকে জানা গেছে, মারাদোনার সন্তানেরা শুধুমাত্র উপর থেকেই দায়িত্ববোধ দেখাতো, কিন্তু কখনো অন্তরে ঢোকার চেষ্টা করেনি। যার ফলেই হৃদয়ে বড় যন্ত্রণা নিয়েই বিদায় নিলেন তিনি।