‘প্রতিটি কটূক্তির জন্য আমি ১১ টাকা করে পাই’ নুসরতের মন্তব্যে রীতিমতো শোরগোল

5
'প্রতিটি কটূক্তির জন্য আমি ১১ টাকা করে পাই' নুসরতের মন্তব্যে রীতিমতো শোরগোল

বাংলাদেশ এবং ভারতীয় বিনোদন জগতের অন্যতম নাম নুসরত ফারিয়া। দুই বাংলাতেই তাঁর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। ‘বিবাহ অভিযান’ খ্যাত এই অভিনেত্রী চলতি সপ্তাহের শুক্রবার ঢাকার বনানীতে দিদি মারিয়ার ফ্যাশন হাউজ উদ্বোধনে গিয়েছিলেন। সেখানেই এক সংবাদমাধ্যমের তরফে প্রশ্নের উত্তরে অভিনেত্রী জানান, ‘যাঁরা আমাকে ভালোবাসেন তাঁদের সকলকে আমার পক্ষ থেকে জানাই অনেক ভালোবাসা।

আর অন্যদিকে যাঁরা আমাকে গালমন্দ করে তাঁদের বলব চালিয়ে যান, নিজেদের কাজ করতে থাকুন। কারণ, প্রতিটি কটূক্তির জন্য আমি ১১ টাকা করে পাই।’ অর্থাৎ এমনই অদ্ভুত তথ্য উঠে এসেছে জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরত ফারিয়ার কন্ঠে। নিন্দুকরা কটূক্তি করলে নাকি বাড়ছে নুসরতের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স!

নায়িকার এরূপ মন্তব্যের পর রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে নেট মাধ্যমে। তাঁর ভক্তমহলেও শুরু হয়েছে ব্যাপক আলোচনা। অভিনেত্রী নিজের ফেসবুক, ট্যুইটার বা ইনস্টাগ্রামে বেশ অ্যাক্টিভ। মাঝেমধ্যেই নানারকমের ছবি পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর সেইসব ছবিতে ভালো কমেন্টের পাশাপাশি অনেক কু-মন্তব্যেরও ঝড় ওঠে। শুক্রবার এইসব বিষয়েই কথা বলতে গিয়ে এমন অদ্ভুত কথা জানান অভিনেত্রী।

আগামী সপ্তাহেই SVF Music এর হাবিবি গানটি মুক্তি পেতে চলেছে। ওই গানটি নিজেই গেয়েছেন ফারিয়া। মিউজিক ভিডিওতে দেখা যাবে তাঁকে। এ প্রসঙ্গে নুসরত বলেন, ‘এটি একটি আইটেম সং। মুম্বইয়ের রাজকীয় মহলে শ্যুটিং হয়েছিল।’

ফারিয়া এই নিয়ে তিন নম্বর গান গাইলেন। নুসরতের গানের প্রশংসায় উচ্ছ্বসিত হন ভক্তরা। অভিনেত্রী অবশ্য মনে করেন, যে কোনো কাজেরই প্রশংসা এবং নিন্দা দুটিরই প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
গত ১ মার্চ বাগদান সেরেছেন নুসরাত ফারিয়া। হয়তো সেই কারণেই লেঙ্গেহা কিংবা শরারায় সোশ্যাল মিডিয়ায় মাঝেমধ্যেই হাজির হচ্ছেন। প্রায় সাত বছরের সম্পর্ককে পরিণতি দিলেন। অভিনেত্রীর হবু স্বামীর নাম রনি রিয়াদ রশিদ। তবে বিয়ে নিয়ে সেরকম কোনও পরিকল্পনা নেই বলেই জানিয়েছেন অভিনেত্রী। কারণ তাঁর বক্তব্য, বিয়ে করার আগে সবকিছু গুছিয়ে নিতে অন্ততপক্ষে ছ’ থেকে সাত মাস সময় লাগবে। কিন্তু, ব্যক্তিগত জীবনের জন্য অতটা সময় এখনই দেওয়া সম্ভব নয় কারণ মহামারীর জন্য এমনিই দু’ বছর সব কাজ পিছিয়ে গিয়েছে। আবার এখন নতুন করে সব কাজ শুরু হচ্ছে। তাই এখন কর্মজীবনে রয়েছে অনেকটাই ব্যস্ততা।