বিয়ের পর স্ত্রীর থেকে সবসময় দূরে সরে থাকতেন স্বামী! উপায় না পেয়ে অবশেষে অভিযোগ দায়ের করলেন মহিলা

15
বিয়ের পর স্ত্রীর থেকে সবসময় দূরে সরে থাকতেন স্বামী! উপায় না পেয়ে অবশেষে অভিযোগ দায়ের করলেন মহিলা

অনেক সময় সঙ্গী অথবা সঙ্গিনীর ভালো করতে গেলে উল্টে খারাপ হয়ে যায়। কোন জিনিস অতিরিক্ত করা ভালো না। অতিরিক্ত হয়ে গেলেই বুমেরাং হয়ে যেতে পারে। এমন একটি ঘটনা ঘটে গেল মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপালে। সেখানে গত মাসে একজন দম্পতি বিবাহ করেছিলেন। কিন্তু এরপর তাদের যৌন মিলন ঘটে নি। সব সময় স্ত্রীর থেকে দূরে সরে থাকতেন স্বামী। সমস্যার কারণ বুঝতে না পেরে অবশেষে অভিযোগ দায়ের করেন ওই মহিলা। কোর্টে গিয়ে স্বামীর পৌরষত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। উপায় না পেয়ে অবশেষে স্ত্রীকে ভুল প্রমাণ করার জন্য মেডিকেল টেস্টে সিদ্ধান্ত নেন স্বামী।

চলতি বছরে সকলেই সকলের সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেছেন। নিজেকে এবং অন্য সকলকে সুস্থ রাখার জন্য এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে অনেককে। এমনই সময় স্বামী শুধুমাত্র তার স্ত্রীর মঙ্গল কামনা করে এরকম কাজ করবেন, তা হয়তো কোনো স্ত্রী ভাবতে পারেননি। নবদম্পতি বিবাহের পর যে একে অপরের সঙ্গে কাছাকাছি আসবেন তা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু করণা সংক্রমণে র ভয় পেয়ে সব সময় শরীর থেকে দূরে থাকতেন সেই স্বামী। সমস্ত রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দেন সেই স্বামী। আমাকে কথা বলার সময় ও সবরকম দূরত্ব বজায় রেখেছিলেন তিনি। এটা যে খুব ভালোভাবে স্ত্রী মেনে নেয়নি তা বলাই বাহুল্য।

অনেকদিন ধরে এই রকম ঘটনা চলার পর অবশেষে মহিলা বাড়ি ছেড়ে বাপের বাড়ি চলে যান। বাপের বাড়িতে গিয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকতে শুরু করেন। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয়ে যায় যে, মহিলার স্বামীর বিরুদ্ধে আইনি পরিসেবা গ্রহণ করার চিন্তাভাবনা করতে থাকেন। তিনি কতৃপক্ষের কাছে সাহায্য চেয়ে বলেন যে তার স্বামী যৌন মিলনে অক্ষম। ভবিষ্যৎ জীবন চালানোর জন্য তিনি স্বামীর থেকে খোরপোষ দাবি করেন।

সম্পূর্ণ ঘটনাটি হতবাক হয়ে যান স্বামী। তাকে কতৃপক্ষ ডেকে পাঠালেন তিনি অবশেষে সিদ্ধান্ত নেন মেডিকেল টেস্ট করানোর। স্ত্রীকে তিনি প্রমাণ করে দেন যে, তার যৌন মিলনে কোন রকম সমস্যা নেই। ইতিবাচক রিপোর্ট আসার পর অবশেষে তিনি তার স্ত্রীকে বাড়ি ফেরাতে সক্ষম হয়েছেন।

আইনের কর্তিপক্ষকে ব্যক্তি জানান যে, শুধুমাত্র পরিবারের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে তিনি এমন কাজ করেছিলেন। বিয়ের পর স্ত্রীর পরিবারের অনেকেই করণা পজিটিভ এসেছিলেন। তাই সম্পূর্ণ পরিবারের মঙ্গলের কথা ভেবে তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আর কিছু নয়।