হু এর সতর্কবার্তাঃ তাড়াহুড়োয় জনজীবন স্বাভাবিক করার চেষ্টা করলে তার ফল হতে পারে মারাত্মক

22
হু এর সতর্কবার্তাঃ তাড়াহুড়োয় জনজীবন স্বাভাবিক করার চেষ্টা করলে তার ফল হতে পারে মারাত্মক

১লা সেপ্টেম্বর থেকে ভারতে আনলক-৪ পর্যায় শুরু হতে চলেছে। মার্চ মাস থেকে টানা ৬৮ দিন সম্পূর্ণ লকডাউন পালন করার পর, ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছে দেশ। আনলকের প্রতিটি পর্যায়ে কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ছাড় মিলেছে। আনলকের চতুর্থ পর্যায়ে যেমন রাজ্যগুলিতে মেট্রো পরিষেবা চালু করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়ারা অভিভাবকের অনুমতি নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে পারেন বলে জানানো হয়েছে।

তবে, ভারতে আনলকের চতুর্থ পর্যায় শুরুর ঠিক একদিন আগেই করোনা মহামারী প্রসঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফ থেকে সতর্কবার্তা জারি করা হলো। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর-জেনারেল টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস জানালেন, বর্তমান করোনা মহামারীর পরিস্থিতিতে তাড়াহুড়ো করে জনজীবন স্বাভাবিক করার চেষ্টা করলে তার ফল হতে পারে মারাত্মক। ঘেব্রিয়েসুসের পরামর্শ অনুযায়ী, যে সকল দেশ ইতিমধ্যেই করোনা মহামারীর প্রকোপ থেকে সম্পূর্ণভাবে মুক্ত হয়ে গেছে, একমাত্র তারাই দেশের জনজীবন স্বাভাবিক করার পথে এগোতে পারে।

এ সম্পর্কে তিনি আরো বলেছেন, জনজীবন স্বাভাবিক করতে গেলে প্রথমে সংক্রমণের হার কমাতে হবে। আপাতদৃষ্টিতে বিষয়টি কঠিন মনে হলেও, আদপেই তা নয়। তিনি বলেছেন, ভাইরাস যাতে কোনোভাবেই না ছড়ায়, সেদিকে পূর্ণ দৃষ্টি রাখতে হবে। বিশেষ করে যাদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি, তাদের সুরক্ষা আগে নিশ্চিত করতে হবে। তার পরামর্শ অনুযায়ী, ব্যাপকহারে টেস্ট, সনাক্তকরণ এবং আইসোলেশন করে সংক্রমনের ক্লাস্টার গুলিকে নির্মূল করতে হবে।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ইটালি শহর ইউরোপের বিভিন্ন দেশে সংক্রমণের হার কমে যাওয়ায় সেখানে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। এদিকে সংক্রমণের হার আরও বেড়ে যাওয়া সত্বেও জনজীবন স্বাভাবিক করার পথে এগোচ্ছে ভারত। এই পরিস্থিতিতে ভবিষ্যতে ভারতের সংক্রমণের হার আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকছে।