ভারতের দক্ষিণ উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় “নিভার”, শুরু হয়েছে বৃষ্টি

14
ভারতের দক্ষিণ উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়

আর কিছুক্ষণের মধ্যেই ভারতের দক্ষিণ উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় “নিভার”। ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস স্বরূপ ইতিমধ্যেই তামিলনাড়ুর বেশ কিছু অঞ্চলে প্রবল বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে বুধবার সন্ধ্যার সময় এই শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় তার সমস্ত শক্তি নিয়ে তামিলনাড়ু এবং পদুচেরি উপকূলে আছড়ে পড়বে, এমনটাই জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

তামিলনাড়ুর কারাইকাল ও মামাল্লাপুরমের মাঝখানে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব সবথেকে বেশি পড়বে। ফলে পদুচেরি, তামিলনাড়ু ও অন্ধ্রপ্রদেশে আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভারী বর্ষণের সতর্কবার্তা জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গের “আমফান” এবং মুম্বাইয়ের “নিসর্গ” ঘূর্ণিঝড়ের ভয়াবহ ক্ষতি সামাল দিয়ে উঠতে না উঠতেই আরো এক প্রবল শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ের সম্মুখীন হতে চলেছে ভারতের দক্ষিণ উপকূল।

মৌসম বিভাগের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ঘূর্ণিঝড় “নিভার” এর উপদ্রব ভারতের দক্ষিণ উপকূলেই সীমিত থাকবে। পশ্চিমবঙ্গ এবং উড়িষ্যাতে এই ঘূর্ণিঝড়ের কোনো প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা তেমন নেই। তবে ঘূর্ণিঝড়ের দরুন আগাম সর্তকতা হিসেবে তামিলনাড়ুর বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী সদা তৎপর রয়েছে। বিপর্যয় সামাল দেওয়ার জন্য ৩০ টি দল মোতায়েন করা হয়েছে। এরমধ্যে শুধু তামিলনাড়ুতেই রয়েছে ১২টি বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর দল।

এদিকে ঘূর্ণিঝড়ের দরুন তামিলনাড়ুর প্রশাসনের তরফ থেকে বুধবার সর্বক্ষেত্রে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। আবহাওয়া দপ্তরের সতর্কবার্তা সত্যি প্রমাণিত করে এদিন সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে ঝোড়ো বাতাস বইতে শুরু করেছে। তার সঙ্গেই চলছে মুষলধারায় বৃষ্টি। বেলা যত বাড়ছে বৃষ্টির বেগও তত বাড়ছে। পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে উপকূলবর্তী এলাকাগুলি থেকে স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। দুর্যোগের মোকাবিলায় প্রস্তুত তামিলনাড়ুর প্রশাসন রাজ্যবাসীকে সবরকম সাহায্যের আশ্বাস প্রদান করেছে।