কিভাবে ধ্বংস প্রাপ্ত হবে সূর্য! দেখুন বিজ্ঞানীদের গবেষণা

43
কিভাবে ধ্বংস প্রাপ্ত হবে সূর্য! দেখুন বিজ্ঞানীদের গবেষণা

সূর্য কবে কিভাবে ধ্বংস প্রাপ্ত হবে সম্পর্কে দীর্ঘদিন ধরেই গবেষণা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। প্রথমে বিজ্ঞানীরা অনুমান করেছিলেন সূর্যের মৃত্যুর পরেই সৌরজগতের প্রতিটি গ্রহ ভেঙে যাবে এবং গ্যাসে রূপান্তরিত হবে। কিন্তু এখন তারা যে তথ্য সামনে আনছেন তা থেকে জানা যাচ্ছে যে সূর্যের মৃত্যুর পরেই সৌরজগৎ নীহারিকায় পরিণত হবে। আর তা হতে আর মাত্র ১০০০ কোটি বছরের অপেক্ষা। তবে তার অনেক আগেই মানুষ সহ সম্পূর্ণ জীবজগৎ ধ্বংস হবে বলে অনুমান বিশেষজ্ঞদের।

ধ্বংসের আগে সূর্য লাল দৈত্য থেকে সাদা বামনে পরিণত হবে। সূর্যের কেন্দ্রের সংকুচিত হবে যার ফলে সূর্যের তাপ উৎপন্ন করার ক্ষমতা হারাবে। সূর্যের বাইরের স্তরগুলো ঠান্ডা হয়ে আলাদা হয়ে যাবে এবং এটি মঙ্গলের কক্ষপথে পৌঁছবে। আমাদের পৃথিবী এই স্তরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ছিন্নভিন্ন হয়ে যাবে। সূর্যের ধ্বংস হওয়ার বহু আগেই পৃথিবীতে প্রাণের অস্তিত্ব নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র বিলীন হবে।

প্রতি ১০০০ কোটি বছরের সূর্য তার উষ্ণতা ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি করছে। একটা সময় আসবে যখন সূর্যের সব শক্তি কমে যাবে। তবে তার আগে সূর্যের তাপ অতিরিক্ত মাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে পৃথিবী থেকে সমস্ত প্রাণের অস্তিত্ব বিলীন হবে। সমুদ্রের জল বাষ্পাকারে মহাকাশে বিলুপ্ত হবে। মানুষ যদি ততদিনে নিজেদের বাসস্থানের জন্য অন্য কোনো উপযুক্ত গ্রহ খুঁজে না পায় তাহলে মানব অস্তিত্ব চিরতরে বিলীন হয়ে যাবে।

ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্বিজ্ঞানী অ্যালবার্ট জিলস্ট্রা জানান, যখন নক্ষত্র শেষ হয়ে যায়, তখন এটি মহাকাশে একটি বড় প্রভাব ফেলে। এই মহাকাশের ৯০ শতাংশ নক্ষত্রের ক্ষেত্রে যা হয়েছে, সূর্যের সঙ্গেও তাই হতে চলেছে। নক্ষত্র ধ্বংস হলে প্রচুর পরিমাণে ধুলো, পাথর এবং গ্যাস নির্গত হয় যা বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। মানুষ যদি তখনও পর্যন্ত নিজের অস্তিত্ব ধরে রাখতে পারে এবং অন্য কোনো গ্রহ খুঁজে পায় তাহলে তারা এই দৃশ্যের সাক্ষী থাকতে পারবে।