এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করেই কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেন হলিউড তারকারা

13
এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করেই কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেন হলিউড তারকারা

বিগত এক বছরে নেট মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট বেশ পরিচিতি পেয়েছে। এই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করেন হলিউড তারকারা। এখানে তারা নিজেদের কিছু ভিডিও এবং ছবি শেয়ার করেন, যে ছবির বদলে তারা মোটা অংকের অর্থ উপার্জন করতে পারেন। প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য তৈরি এই প্লাটফর্ম করোনাকালে তারকাদের উপার্জনের একটি মাধ্যম হয়ে উঠেছে। যেখান থেকে প্রায় কোটি কোটি টাকা উপার্জন করতে পারেন একেকজন তারকা।

এই ওয়েবসাইটটির বিশেষত্ব হলো, এখানে টাকা দিয়ে সাবস্ক্রিপশন নিতে হয়। বদলে পছন্দের তারকা’র বিশেষ ছবি বা ভিডিও দেখতে পারেন আপনি। এই ওয়েবসাইটটি কে অনুরাগীদের সঙ্গে যোগাযোগের আরেকটি বড় মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করেছেন তারকারা। অবশ্য ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার সেলিব্রিটিদের সঙ্গে সাধারণের সংযোগ বাড়িয়েছে। তবুও সেখানে নগ্নতা, যৌনতা, বর্ণ বৈষম্য নিয়ে নিয়ম নিষেধের ঘেরাটোপ রয়েছে।

তবে এই ওয়েবসাইটে তেমন কোনো নিয়ম নিষেধাজ্ঞা নেই। সাবস্ক্রাইবার যেমন খুশি যখন খুশি হলিউড তারকাদের বিশেষ ভিডিও কিংবা ছবি দেখতে পারেন। এখানে তারকাদের উপার্জনের বহর শুনলে চমকে যাবেন। ইতিমধ্যেই এই ওয়েবসাইটের তিন কোটি সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। এখানে যারা ভিডিও পোস্ট করেন তাদের বলা হয় কনটেন্ট ক্রিয়েটার। যাদের সংখ্যাটা প্রায় ৪ লক্ষের কাছাকাছি।

অর্থাৎ একবার এই ওয়েবসাইটের সাবস্ক্রাইবার হতে পারলেই সম্পূর্ণ বিনোদন আপনার হাতের মুঠোয়। যে কনটেন্ট
কনটেন্ট ক্রিয়েটরের ভিউয়ার্স এর সংখ্যা যত বেশি, তার উপার্জনের পরিমাণ তত বেশি। হলিউড অভিনেত্রী বেলা থর্ন স্রেফ এই ওয়েবসাইট থেকে একদিনে দশ লক্ষ ডলার উপার্জন করেছেন। যার পর থেকেই কার্যত দৈনিক উপার্জনের মেয়াদ বেঁধে দিয়েছে ওয়েবসাইট। কারণ তারকারা যদি একদিনে এত টাকা করে উপার্জন করতে থাকেন তাহলে ওয়েবসাইট সেই টাকার জোগান দেবে কোথা থেকে? তবে বেলা একা নন, হলিউডের একাধিক তারকা এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করে মোটা অঙ্কের অর্থ উপার্জন করছেন।

ওয়েবসাইটটির কনিষ্ঠতম সদস্য ১৮ বছরের মার্কিন র‌্যাপ শিল্পী ভাড ভাবি। ১৮ পূর্ণ করার এক সপ্তাহের মধ্যেই ওয়েবসাইটে নিজের ফ্যানপেজ খুলেছিলেন। তাঁর দাবি এখানে ৬ ঘণ্টায় তিনি ১০ লক্ষ ডলার রোজগার করেছেন।

কিছু দিন আগেই হলিউডের এক অভিনেত্রী বেলা থর্ন স্রেফ এক দিনে এই ওয়েবসাইট থেকে ১০ লক্ষ ডলার উপার্জন করেছেন। বেলার উপার্জনের বহর দেখে নীতি বদলাতে বাধ্য হয় ওয়েবসাইটটি। এক দিনে একজন তারকা ১০ লক্ষ ডলার আয় করলে, তার জোগান আসবে কোথা থেকে! বেলার ঘটনার পর তাই দৈনিক সর্বোচ্চ উপার্জনের উপর একটা সীমারেখা টেনে দিয়েছিলেন ওয়েবসাইট কর্তৃপক্ষ।

ভিডিয়ো যাঁরা পোস্ট করেন তাঁদের বলা হয় ‘কনটেন্ট ক্রিয়েটর’। এঁরা পোস্টের বিনিময়ে টাকা পান। পোস্ট যত বেশি মানুষ দেখবেন, অর্থের পরিমাণ তত বাড়বে। অতিমারী চলাকালীন এই কনটেন্ট ক্রিয়েটরের সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। অতিমারী পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে যাওয়া অনেককেই উপার্জনে সাহায্য করেছে এই ওয়েবসাইটটি। তবে তার সুযোগে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে প্রাপ্তবয়স্ক ভিডিয়োর সংখ্যাও।