হ্যাঙ্গওভার কাটাতে মেনে চলুন এই কয়েকটি টিপস

7
হ্যাঙ্গওভার কাটাতে মেনে চলুন এই কয়েকটি টিপস
Drunk people in a party

রাতে উত্তাল আনন্দ করার পর সকালবেলা মাথা তোলা যেন দায় হয়ে পড়ে। সকাল থেকেই যেন মনে হয় অদ্ভুত একটি মাথার যন্ত্রণা ভাব। অতিরিক্ত শরীরে আলকোহল চলে যাবার ফলে গলা শুকিয়ে যাওয়া, পেশিতে ব্যথা, বমি বমি ভাব অথবা অস্বস্তি দেখা যায় শরীরে। অনেকেই এই সময় চিন্তা করে ফেলেন। মনে করেন যে শরীর হয়তো খুবই অসুস্থ হয়ে যাবে। তবে বিশ্বাস করুন, যদি হাতের কাছে থাকে কিছু খাবার তাহলে চটজলদি আপনি সুস্থ হয়ে যেতে পারেন।

কলা এবং ওটস: শরীরে হ্যাঙ্গওভার থাকলে সব থেকে দ্রুত একটি কলা খেয়ে নেওয়া জরুরি। কলাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম এবং সোডিয়াম থাকে। এগুলি শরীরের ইলেক্ট্রোলাইট ব্যালেন্স করতে সাহায্য করে। তাই যদি মনে হয় শরীর অসুস্থ লাগছে, তাহলে এক্ষুণি খেয়ে নিন ওটস এবং কলা।

ডিম এবং অ্যাভোকাডো: শরীরে এনার্জি বজায় রাখার জন্য ডিম খাওয়া খুবই জরুরী। অতিরিক্ত অ্যালকোহল শরীরে গ্লতাথায়ানের মাত্রা কমিয়ে দেয়। ডিম খেলে আরও একবার সেই মাত্রা বজায় থাকে।অ্যালকোহল এর ক্ষতিকর দিক গুলি সরিয়ে গিয়ে লিভার ড্যামেজ থেকে বাঁচিয়ে দেয় আপনাকে অ্যাভোকাডো। এর ফলে হ্যাঙ্গওভার এর বিরুদ্ধে খুব তাড়াতাড়ি লড়াই করতে পারে আপনার শরীর।

পালং শাক: এই সবজিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ লবণ এবং আয়রন থাকে। তাই হ্যাঙ্গওভার এর মোকাবিলায় দারুন কাজ দেয় পালং শাক।

শতমূলী: মধু এবং বাদাম জাতীয় খাবার যদি খেতে পারেন তাহলে, খুব কার্যকর খাবার হলো শতমূলী। এটি শরীরের উৎসেচক ধরনের সাহায্য করে।পাশাপাশি থাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি আপনাকে হ্যাঙ্গওভার কাটিয়ে দিতে সাহায্য করবে। তাই হ্যাঙ্গওভার কাটাতে আখরোট বাদাম অথবা কাজু বাদাম খেতে পারেন আপনি।