দেখে নিন কীভাবে এসি ছাড়াই ঘর ঠাণ্ডা রাখবেন, রইলো সহজ টিপস

10
দেখে নিন কীভাবে এসি ছাড়াই ঘর ঠাণ্ডা রাখবেন, রইলো সহজ টিপস

গ্রীষ্মকাল পড়তে না পড়তেই শুরু হয়ে গেছে রোদের তেজ। ইতিমধ্যেই তাপমাত্রার পারদ আস্তে আস্তে ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করেছে। দুপুরবেলা কোনরকমে কাটিয়ে দিতে পারলেও রাতের বেলা ঘুম আসতে চায় না কোনোভাবে। ফ্যানের হাওয়া যেন গায়ে লাগেনা। যেভাবে গ্রীষ্মকালের আমেজ শুরু হয়ে গেছে, তাতে করে বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে যে কি হাল হবে, তা ভাবতে গেলে ভয় লেগে যাচ্ছে এখন থেকেই।

রাতের বেলা এখন থেকেই এসি চালাতে শুরু করেছেন অনেকেই। এসির ঠাণ্ডা হাওয়া তে রাতের বেলা ঘুম ভাল হলেও কিন্তু ইলেকট্রিক বিলে টাকার অংকের কথা মনে পড়লেই মনটা কেমন ভেঙে যাচ্ছে। চিন্তায় চিন্তায় রাতে ঘুমোচ্ছে না মধ্যবিত্ত বাঙালির। আপনিও যদি পড়েন সেই দলে তাহলে আজকেই প্রতিবেদনটা একদম আপনার জন্যই।

এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাকে জানাবো যে কিভাবে এসি না চালিয়ে ঘর ঠান্ডা করতে পারবেন আপনি। প্রথমেই বলি প্রত্যেকের ঘরেই রাত্রিবেলা জ্বলে টিউবলাইট। কিন্তু টিউবলাইট বেশিক্ষণ জ্বললে ঘর গরম হয়ে যায়। এক্ষেত্রে কম আলোর এলইডি লাইট ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

ঘরের ভেন্টিলেটর থাকলে সেটি ভালো করে পরিষ্কার করুন অবিলম্বে। ভেন্টিলেটর নোংরা হয়ে থাকলে বাতাস চলাচল করতে পারে না একেবারে। শয়নকক্ষে যদি কাঠের জানালা থাকে তাহলে অসুবিধা নেই কিন্তু যদি জানলা কাচের হয় তাহলে আজই বাজার থেকে কিনে আনুন গাঢ় রঙের পর্দা। গাঢ় রঙের পর্দা ব্যবহার করলে সূর্যের আলো অনেকটাই আটকে যাবে।

জানলার অথবা পর্যায়ে ব্যবহার করুন খেসের পর্দা। এটি এমন একটি ঘাস যা তাপ আটকাতে সক্ষম হয়। প্রত্যেকদিন যদি এই পর্দাতে সামান্য জল ঢেলে দিতে পারেন তাহলে, দেখবেন কিভাবে এসি ছাড়া আপনার ঘর ঠান্ডা হয়ে গেছে।

হাতের কাছে এই পর্দা না পাওয়া গেলে, যদি সম্ভব হয় তাহলে মোটা চাদর জলে ভিজিয়ে শুকিয়ে নিয়ে সেটি পর্দার গায়ে সেঁটে দিতে পারেন তাহলে বিকল্প হিসাবে বেশ ভালই কাজ করবে এটি।

এরপর আসে বিছানার চাদর অথবা বেডকভারের কথায়। বিছানার চাদর অথবা বেড কভার হালকা পাতলা সূতির ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। বালিশে ভরে রাখুন বাজরা অথবা চাল। গদির মাঝখানে একটি মাদুর পেতে রাখলে বিছানার গরম দেখবেন অনেকটাই কমে গেছে।

এছাড়া ঘর মোছার সময় সামান্য নুন মিশিয়ে নিন জলের মধ্যে। এতে করে ঘরের তাপমাত্রা অনেকটা কমে যায়।