মারন রোগে আক্রান্ত kgf২ এর খ্যাত অভিনেতা হরিশ রায়

11
মারন রোগে আক্রান্ত kgf২ এর খ্যাত অভিনেতা হরিশ রায়

ক্যান্সারের ফোর্থ স্টেজে রয়েছেন kgf২ এর খ্যাত অভিনেতা হরিশ রায়। গোটা বিষয়টি সম্পর্কে তিনি ভ্রুনাক্ষরে কাউকে টের পেতে দেননি, যদিও অবশেষে একটি সংবাদমাধ্যমকে তিনি তাঁর এই রোগের বিষয়ে জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন,” তিনি থ্রোট ক্যান্সারে ভুগছেন এবং যেটি চতুর্থ স্টেজের রয়েছে। কিছু বছর আগে অভিনেতার গলাতে একটি ল্যাম্প তৈরি হয় এবং যেটা সার্জারি করার কথা ছিল কিন্তু ভয় পাওয়ার কারণে তিনি শেষ পর্যন্ত করেনি কারণ সেই সময়ে তার সন্তানরা অতিরিক্ত ছোট ছিল সেইজন্য তার কিছু হয়ে যায় যদি সেই ভয়েই তিনি কোন ঝুঁকি নিতে চাননি। অবশেষে আস্তে আস্তে দিনের পর দিন সেই রোগ ফুসফুসে ছড়িয়ে যায় এবং ফুসফুসে ক্যান্সার তার থাবা বসায়।”

কেজিএফ শুটিংয়ের করার সময় মাঝে মাঝেই হরিশের নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হতো বলেই তিনি জানিয়েছেন কিন্তু এই গুরুতর রোগের কথা তিনি কাউকে জানতে দেননি কিন্তু সেই সময় তার চিকিৎসার জন্য যে তিনি কোন প্রাইভেট হাসপাতালে যাবেন সেই টাকা ও তার কাছে ছিল না অবশেষে তার এক বন্ধুর পরামর্শে তিনি যান ব্যাঙ্গালোর সরকারি ক্যান্সার হাসপাতাল এখানেই তার চিকিৎসা শুরু হয়।

সার্জারি হয়, রেডিয়েশন থেরাপি দেওয়া হয় কিন্তু কোনোরকম স্বাস্থ্যের উন্নতি তখনও পর্যন্ত ঘটেনি। অবশেষে চিকিৎসকরা অভিনেতাকে জানিয়েছিলেন যে তার ক্যান্সার ইতিমধ্যেই ফোর্থ স্টেজে চলে গিয়েছে।

হরিশ জানান, “তিনি টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারেননি। চিকিৎসা না করানোর জন্য আস্তে আস্তে তার গলা ফুলে যায় যার কারণে তিনি বিষয়টি ঢেকে রাখার জন্যই দাঁড়ি রাখতে শুরু করেন। এরপরে তিনি ভেবেছিলেন যে কারোর কাছে তিনি সাহায্য চাইবেন কিন্তু তার ভয় হয়েছিল যে কেউ যদি কোন সাহায্য তাকে না করে। তিনি চেয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও পোস্ট করতে কিন্তু সেই পোস্টে তিনি করতে পারেননি”।

অবশেষে সৌভাগ্যবশত তার কাছে আসে কেজিএফে অভিনয় করার সুযোগ যার পরে কেজিএফ এর টাকা পেয়ে তিনি ডাক্তার দেখাতে শুরু করেন। বর্তমানে হরিশের প্রতিমাসে ওষুধ লাগে তিন লক্ষ টাকার কাছাকাছি তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তিনি এখন অনেকটাই সুস্থ রয়েছেন এবং এই রোগ ও ভবিষ্যতে সেরে যাবে।