প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী শিবেন্দু শেখর রায়ের নামাঙ্কিত রাস্তার শুভ উদ্বোধন

9
প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী শিবেন্দু শেখর রায়ের নামাঙ্কিত রাস্তার শুভ উদ্বোধন

মালদা,২৭ জুন : প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী শিবেন্দু শেখর রায়ের নামাঙ্কিত রাস্তার শুভ উদ্বোধন হল রবিবার সন্ধ্যায়। ইংরেজবাজার পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের মিশনঘাট সংলগ্ন এলাকায় একটি মেস্টিক রাস্তার শুভ সূচনা হয় রবিবার সন্ধ্যায়।
বহুকাংক্ষিত পৌরবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি মেনেই এই ঢালাই রাস্তার উদ্বোধন হওয়ায় যথেষ্টই খুশি ৮নং ওয়ার্ডের মিশন ঘাট এলাকার বাসিন্দারা।

স্বাধীনতা সংগ্রামী শিবেন্দু শেখর রায় নামাঙ্কিত পাকা রাস্তার শুভ সূচনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজ্য সভার সাংসদ তথা প্রয়াত শিবেন্দু শেখর রায়ের পু্ত্র সুখেন্দু শেখর রায়, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন ও শেষ দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, বিধায়ক আব্দুর রহিম বক্সী, ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান সুমালা আগারওয়ালা, স্থানীয় কাউন্সিলর কাকলি চৌধুরী, চেয়ারম্যান ইন কাউন্সিল শুভময় বসু, কাউন্সিলর মনীষা মন্ডল, পূজা দাস, বরুন সরদার সহ ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। ফিতে কেটে নারকেল ফাটিয়ে পাকা রাস্তার শুভ সূচনা করেন
মন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন এবং চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী।
ফলক উন্মোচন করেন রাজ্য সভার সাংসদ শিবেন্দু শেখর রায়।

রাস্তা উদ্বোধনের পর সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় বলেন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর একটি আবেদন রেখেছিলেন পাকা রাস্তা তৈরির জন্য। তার বাবার নামে এই রাস্তা তৈরি হওয়ায় তিনি আনন্দিত। হাজার হাজার মানুষ পাকা রাস্তা দিয়ে চলাফেরা করবে। তার সাংসদ কোটার অর্থ দিয়ে এই রাস্তা তৈরি হওয়ায় তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও স্থানীয় কাউন্সিলরকে।

চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী বলেন,১৯৪৭ সালের ১৫ ই আগস্ট ভারত স্বাধীন হয় কিন্তু মালদা জেলা সহ কয়েকটি জেলা তখনও স্বাধীনতা পায়নি। কারণ সেই সময় পূর্বপাকিস্তানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল মালদা জেলা সহ কয়েকটি জেলাকে। সেই সময় স্বাধীনতা সংগ্রামী শুভেন্দু শেখর রায় সহ অন্যান্য স্বাধীনতা সংগ্রামীরা মালদা জেলাকে ভারতবর্ষে রাখার আইনি লড়াই লড়েছিলেন। অবশেষে তিনদিন পর ভারতের অন্তর্ভুক্ত করা হয় মালদা জেলা সহ কয়েকটি জেলাকে। মিশন ঘাট রোড থেকে মহানন্দা সেতু পর্যন্ত সেই রাস্তার শিবেন্দু পথ নাম দেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানানো হয় প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামীকে।
স্থানীয় কাউন্সিলর কাকলি চৌধুরী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় ছিল এই রাস্তাটি। তিনি বিপুল ভোটে জিতেছেন ওয়ার্ড থেকে। তাই মানুষের জন্য কাজ করতে পেরে খুশি তিনি। সাধারণ মানুষের জন্য রাস্তা তৈরি হওয়ায় তিনি ধন্যবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শুখেন্দু শেখর রায় কে।