মধ্যবিত্তের মাথায় হাত! বাজার থেকে উধাও ডিম

14
মধ্যবিত্তের মাথায় হাত! বাজার থেকে উধাও ডিম

আজ রাজ্য জুড়ে লকডাউনের প্রথম দিন পালন করা হচ্ছে। নবান্নের নির্দেশ অনুসারে সকল বিধিনিষেধ মেনেই লকডাউন পালন করছেন রাজ্যবাসী। তবে লকডাউন এর প্রথম দিন থেকেই রাজ্যে কালোবাজারি শুরু। তাও আবার রোজকার নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ডিম নিয়ে! আজ সকাল থেকেই উত্তর ২৪ পরগনার বারুইপুরের বাজারে নাকি ডিম উধাও! ‌যে গুটিকতক ডিম পড়ে আছে বাজারে, তার দামও আকাশছোঁয়া।

লকডাউনের প্রথম দিনেই এমন ঘোরতর সমস্যার সম্মুখীন হতে হলো বারুইপুরের বাসিন্দাদের। বিক্রেতাদের যুক্তি, বাজারে ডিমের চাহিদা আছে, কিন্তু যোগান নেই। যাতায়াতের অসুবিধার কারণেই নাকি ডিমের এই অপ্রতুলতা দেখা দিয়েছে বারুইপুরের বাজারে। আজ সকালে বারুইপুরের বাজারে পৌঁছেই মধ্যবিত্তের মাথায় হাত। ডিম একেবারেই অমিল বাজারে। যাও গুটিকতক আছে, চাহিদা বাড়ার কারণে সেগুলির দামও বৃদ্ধি পেয়েছে।

বারুইপুর বাজারে ১ ট্রে ডিমের দাম গতকাল পর্যন্ত ১৬৫ টাকা ছিল। এখন তা ১৮৫ বা ১৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতাদের ভাষায়, কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কালোবাজারির কারণেই ডিম নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন তারা। ডিমের দাম যে বাড়তে পারে এমনটা অনেকেই আশঙ্কা করেছিলেন। তবে তাই বলে বাজার থেকে যে ডিম উধাও হয়ে যাবে, এমনটা আশা করেননি কেউ।

শুধু ডিম নয়, মাংসের দামও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি মুরগির মাংস এখন ২২০ থেকে ২৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ডিমের দামও আগামী দিনে ১০ টাকার কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন মধ্যবিত্ত ক্রেতারা। এদিকে পোল্ট্রি ফার্মের মালিকদের দাবি, মুরগি এবং ডিমের জোগান বাজারে অব্যাহত রাখতে গেলে পরিবহনে ছাড় দিতে হবে। নয়তো এই কৃত্রিম চাহিদা বাজারে আরো বেড়েই চলবে।