বাচ্চাদের বার বার ন্যাড়া করাচ্ছেন? জানুন কি হতে পারে

4
বাচ্চাদের বার বার ন্যাড়া করাচ্ছেন? জানুন কি হতে পারে

ঘন চুলের আশায় আপনার ছেলে কে বার বার ন্যাড়া করাচ্ছেন?। অনেকেই ভাবেন বার বার ন্যাড়া করালেই বুঝি চুল ঘন হবে। অনেক বাবা-মা মনে করেন শিশুকে একাধিক বার ন্যাড়া না করলে চুলের গোড়া মজবুত হবে না। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন এই কথার কোনও বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা কি আদৌ রয়েছে?

চুলের যত্ন নিয়ে এমন অনেক প্রচলিত ধারণা রয়েছে, যা আদতে সত্যি নয়। সে সব মেনে হয়তো চুলের ক্ষতি বেশি হচ্ছে। সেগুলি কী, জেনে নিন।

১। চুলের প্রকৃতি তৈলাক্ত হলে কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিত নয়: কন্ডিশনার ব্যবহার করলে চুল তৈলাক্ত হয় না। কন্ডিশনার চুলের কোষ রক্ষা করার পাশাপাশি, পরিবেশগত ক্ষতির হাত থেকেও সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে। শ্যাম্পু করার পরও কন্ডিশনার লাগাতে ভুলবেন না যেন।

২। প্রতিদিন তেল লাগালে চুল তাড়াতাড়ি বাড়ে: অনেকেই মনে করেন, রোজ নিয়ম করে মাথায় তেল লাগালে তাড়াতাড়ি চুল বাড়বে। এমনটা একেবারেই নয়। মাথার তালু তৈলাক্ত হয়ে থাকলে তাতে ধুলো-ময়লা বেশি জমবে এবং তাতে চুল পড়া বাড়বে বইকি কমবে না। সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন তেল মালিশ করলেই যথেষ্ট। তাতে মাথার তালুর রক্ত চলাচল বাড়বে এবং চুলের গোড়া মজবুত হবে। তেল লাগানোর কিছু ক্ষণ পরেই শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে।

৩। ন্যাড়া হলে চুল ঘন হয়: ন্যাড়া হলেই যে ঘন চুল হবে, তেমন কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। চুল গজায় ফলিক্‌ল থেকে। তা মাথার তালুর কয়েক মিলিমিটার নীচে থাকে। চুল কামানোয় ফলিক্‌লের উপর কোনও ভাবেই প্রভাব পড়ে না।

৪। বার বার চুল কাটলে চুল তাড়াতাড়ি বাড়ে: নিয়মিত চুল কাটলেই চুল বাড়বে, এ ধারণা ভুল। কয়েক মাস অন্তর চুল কাটতে বলা হয় কারণ চুলের ডগা ফেটে গেলে চুলের নীচের দিকটা খুব পাতলা হয়ে যায়। তখন দেখতেও ভাল লাগে না। চুল গোঁড়ার দিক থেকে বাড়ে। আর সম্পূর্ণটাই নির্ভর করছে আপনার জিনের উপর আর আপনি কতখানি চুলের যত্ন করছেন তার উপর।

৫। পাকা চুল তুললে আরও বেশ গজায়: একটি পাকা চুল টেনে তুললে আরও চুল পেকে যাবে, এমন প্রমাণ কোনও গবেষণায় পাওয়া যায়নি। প্রতিটি চুল পৃথক হেয়ার ফলিকল থেকে গজায়। তাই একটি পাকা চুল তুললে পরে সেই ফলিকলটি থেকে যেই নতুন চুল গজাবে সেটিও সাদা হবে। তবে এর কারণে অন্য ফলিকলগুলির উপর কোনও প্রভাব পড়বে না। তাড়াতাড়ি চুল পাকার কারণ মূলত জিনগত এবং কিছুটা জীবনযাপনে নানা ভুলত্রুটির জন্য।