সম্প্রতি প্রায় ২০০০ বছরের পুরনো বিশালাকার একটি বিড়ালের চিত্রাঙ্কন আবিষ্কার করলেন ভূতত্ত্ববিদরা

5
সম্প্রতি প্রায় ২০০০ বছরের পুরনো বিশালাকার একটি বিড়ালের চিত্রাঙ্কন আবিষ্কার করলেন ভূতত্ত্ববিদরা

সম্প্রতি পেরুতে অবস্থিত একটি পাহাড়ের উপর প্রায় ২০০০ বছরের পুরনো বিশাল আকৃতির একটি বিড়ালের চিত্রাঙ্কন আবিষ্কার করলেন ভূতত্ত্ববিদরা। প্রায় দুই হাজার বছর আগে বিখ্যাত “নাজকা” চিত্রকলার নিদর্শন হিসেবে পাহাড়ের গায়ে ওই বিড়ালের ছবি খোদাই করা হয়েছিল। পাহাড়ের গায়ে খোদিত বেড়ালের ছবিটি প্রায় ৩৭ মিটার লম্বা। এই ছবিটিকে প্রাচীন শিল্পকলার অভূতপূর্ব নিদর্শন হিসেবেই দেখছেন আবিষ্কর্তারা।

প্রায় দুই হাজার বছর আগে এই বিড়ালের ছবিটি পাহাড়ের গায়ে এমনভাবে খোদাই করা হয়েছিল যে তার মাথাটি ছিল পাহাড়ের একেবারে চূড়ার দিকে। বিড়ালের দেহ এবং লেজের দিকের অংশ ছিল পাহাড়ের নিচের দিকে।পাহাড়ের গায়ে এত সুন্দর এবং এত পুরনো বিড়ালের প্রতিকৃতি আবিষ্কৃত হওয়াতে ওই পাহাড়টি যে এখন দর্শনার্থীদের কাছে একটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় পাহাড় হয়ে উঠল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

ওই পাহাড়ের উপর বিড়ালের প্রতিকৃতি ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি জীবের ছবি পাওয়া গেছে। তার মধ্যে রয়েছে একটি বাঁদর, একটি পেলিকান, একটি শকুন এবং একটি হামিংবার্ডের ছবি। ভূমিক্ষয়ের কারণে বিড়ালের প্রতিকৃতিটি ক্রমশই ম্লান হয়ে আসছে। ভূতত্ত্ববিদদের মতে, নাজকা লাইন অত্যন্ত প্রাচীন একটি শিল্পকলা যেখানে পাহাড়ের উপরের স্তরে খোদাই করে বিভিন্ন প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তুলতে প্রাচীন যুগের মানুষ।

ঐতিহাসিকদের মতে, প্রাচীন নাজকা অধিবাসীরা শতাধিক জ্যামিতিক এবং জুমরফিক আকৃতির স্রষ্টা। এই আকৃতি গুলি বানানোর জন্য তারা যে বিশেষ রেখা ব্যবহার করতেন তা “নাজকা রেখা” হিসেবে খ্যাত।