এবার থেকে অন্যের টিকাকরণের দায়িত্ব নিতে পাবেন আপনিও! জানুন কীভাবে

11
এবার থেকে অন্যের টিকাকরণের দায়িত্ব নিতে পাবেন আপনিও! জানুন কীভাবে

কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত অনুসারে এবার থেকে দেশের যে কোনো নাগরিক মনে করলে অন্য নাগরিকের টিকাকরণের দায়িত্ব নিতে পারেন। কেন্দ্রের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, এই ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য শীঘ্রই কেন্দ্রের তরফ থেকে একটি ই-ভাউচার চালু করা হবে। যে ই-ভাউচার ব্যবহার করে আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পরা বন্ধু-বান্ধব কিংবা আত্মীয়-স্বজন বা অন্যান্য চেনা-পরিচিতজনের টিকাকরণের ব্যয় বহন করতে পারেন আপনি।

তবে এই ই-ভাউচার কেবলমাত্র বেসরকারি সংস্থার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে। যদি কাউকে বেসরকারি সংস্থা থেকে টিকা দেওয়াতে চান তাহলে আপনাকে একটি নন-ট্রান্সফারেবল ইলেকট্রনিক ভাউচার কিনে নিতে হবে। এরপর যিনি টিকা নেবেন, তিনি ওই ই-ভাউচারটি কোনো বেসরকারি সংস্থা, যেখানে টাকার বদলে টিকা দেওয়া হয়, সেখানে দেখালেই বিনামূল্যে টিকা পাবেন।

বিশিষ্ট সংবাদসংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, আগামী ২১শে জুনের মধ্যেই এই ব্যবস্থা চালু হয়ে যাচ্ছে। তারপর থেকেই যাদের সামর্থ্য আছে এবং যারা অন্যের টিকাকরণের ভার নিতে ইচ্ছুক, তারা এই টিকাকরণ কর্মসূচিতে সামিল হতে পারবেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় সরকার অবশ্য জানিয়ে দিয়েছে যে এবার থেকে করোনা টিকার ৭৫ শতাংশ টিকা বিনামূল্যেই দেশবাসীকে দেবে কেন্দ্রীয় সরকার।

তবে বেসরকারি সংস্থাগুলির ক্ষেত্রেও টিকার দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে। কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজের দাম ৭৮০ টাকা, কোভ্যাক্সিনের দাম ১৪১০ টাকা এবং রুশ করোনা টিকা স্পুটনিক ভি-এর দাম ১১৪৫ টাকা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, কর ও হাসপাতালের সার্ভিস চার্জ বাবদ ১৫০ টাকা এই দামের অন্তর্ভুক্ত। অতএব এবার থেকে বেশি দামে টিকা প্রদান করা হলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে।