খোঁজ মিলল ওমিক্রনের নতুন দুই ভ্যারিয়েন্ট BF-7 এবং BA. 5.1.7, সতর্ক করলো বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা

10
খোঁজ মিলল ওমিক্রনের নতুন দুই ভ্যারিয়েন্ট BF-7 এবং BA. 5.1.7, সতর্ক করলো বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা

করোনার পর পুনরায় নতুন ভ্যারিয়েন্টের অত্যাচার শুরু হয়েছে চিনে, আর এখন সেটাই সরগরম টপিক। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চিনে প্রথম করোনার উৎপাত শুরু হয়। তখনও বিশ্ববাসী ভাবতে পারেনি যে একটা ভাইরাস গোটা জগতের ছবিই সম্পূর্ণ চেঞ্জ করে দেবে। তারপর থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়তে থাকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। বিভিন্ন দেশ জুড়ে শুরু হয়ে যায় লকডাউন। তবে এই মুহুর্তে করোনাকে অনেকটাই বাগে আনতে পেরেছে গোটা বিশ্বের মানুষ। যদিও তার মধ্যে চিনে ওমিক্রনের নতুন দুই ভ্যারিয়েন্ট BF-7 এবং BA. 5.1.7 এর খোঁজ পাওয়া গেল।

সূত্রের খবর, উত্তর পশ্চিম চিনে প্রথম এই সংক্রামক শনাক্ত সম্ভব হয়েছে। তবে চিনের মূল ভূখণ্ডে এর সাব ভ্যারিয়েন্ট BA. 5.1.7 এর প্রথমবার শনাক্তকরণ হয়েছে। অত্যন্ত দ্রুত গতিতে এই ভ্যারিয়েন্টগুলি ছড়িয়ে পড়ছে বলেও খবর।

ইতিমধ্যে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার তরফে সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে BF-7 সম্পর্কে। সংস্থার তরফে এও বলা হয়েছে যে সময়মতো প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ করা যদি সম্ভব না হয় তাহলে এটি চিনে ব্যাপক হারে সংক্রমণ ঘটাবে। সরকারি সূত্রে খবর, উত্তর চিনের শানডং প্রদেশে ৪ই অক্টোবর থেকে BF-7 এর সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর, 9 অক্টোবর চিনে সংক্রামিতের সংখ্যা ছিল 1939। 20 অগাস্টের পর থেকে চিনে সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে। এর মধ্যে সাংহাইতে 34 জনকে শনাক্ত করা হয়েছে যা গত 3 মাসে রেকর্ড।

এই সংক্রমণের কারণে সদ্য শেষ হওয়া সপ্তাহ ব্যাপী জাতীয় ছুটির সময় ভ্রমণকারীদের আটক রাখা হয়েছিল। কোভিড নিয়ে চিনে এখন জিরো টলারেন্স নীতি প্রয়োগ করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে সীমান্ত বিধিনিষেধ, ব্যাপক হারে পরীক্ষা নিরীক্ষা, প্রয়োজন অনুসারে বিপুল সংখ্যক মানুষকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা এবং সংক্ষিপ্ত লকডাউনের মাধ্যমে চেন ভাঙার পদ্ধতিও চালু রয়েছে।