হাতের হস্তরেখা দেখেই জেনে নিন আপনার আয়ুকাল!

16
হাতের হস্তরেখা দেখেই জেনে নিন আপনার আয়ুকাল!

হস্তরেখা বিচারের ক্ষেত্রে জীবনরেখার স্থান খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জ্যোতিষশাস্ত্রে বলা হয়, যে জাতকের হাতে জীবনরেখার অস্তিত্ব নেই, সেই জাতক ব্যক্তি বৈশিষ্ট্য, জীবনশক্তি, পেশীশক্তি বিহীন। এই জীবনরেখা থেকেই আয়ু বিচার করা হয়। সেই কারণে এই রেখাকে আয়ুরেখাও বলা হয়।

ব্যক্তি কতবছর পর্যন্ত বাঁচবেন  এবং তার জীবন কেমন হবে, জীবনরেখা থেকে অনেক কিছু জানা যাবে। জীবন রেখা একজন ব্যক্তির জীবনের  সূচক। জীবনরেখায় পাওয়া লক্ষণগুলিও খুব গুরুত্বপূর্ণ। জীবনরেখার গঠন, তার উপর তৈরি করা চিহ্ন এবং এর প্রকৃতিও একজন ব্যক্তির জীবনকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করে।

হস্তরেখা বিজ্ঞান  অনুসারে, যদি কোনও ব্যক্তির হাতে জীবনরেখা দীর্ঘ এবং গভীর হয় তবে তার দীর্ঘায়ু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমন ব্যক্তি একশো বছর বয়স পর্যন্ত বাঁচতে পারেন। কোনো ব্যক্তির জীবনরেখা যদি ভাঙা থাকে, তবে এটি নির্দেশ করে যে ওই ব্যক্তির কোনোরকম দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বা তিনি অসুস্থ হতে পারেন।

গভীর লাল রঙের আয়ু রেখাযুক্ত ব্যক্তি খুব রাগী প্রকৃতির হন। যদি কোনো ব্যক্তির হাতে মঙ্গল পর্বত উঁচু হয়, তাহলে এমন ব্যক্তি খুব রাগী হন। এমন ব্যক্তি কখনও কখনও রাগে আবার খুন করতেও পারেন।

যদি  জীবনরেখা থেকে একাধিক শাখা বের হয় এবং সেগুলো বুধের পর্বতের দিকে যায়, তাহলে এটি ব্যক্তির ব্যবসায় উন্নতির লক্ষণ। এই ধরনের মানুষ ব্যবসায়ে অনেক উন্নতি করেন।

হস্তশাস্ত্র অনুসারে, হালকা জীবনরেখা একজন ব্যক্তির খারাপ স্বাস্থ্য এবং দুর্ঘটনা নির্দেশ করে। যদি জীবনরেখা ছোট হয় তাহলে এর অর্থ তাঁর জীবন সংক্ষিপ্ত। কিন্তু ছোট জীবনরেখার সঙ্গে যদি শক্তিশালী ভাগ্য এবং হৃদয়রেখা থাকে তাহলে বয়স প্রভাবিত হবে না। এমন ব্যক্তি দীর্ঘ জীবন লাভ করতে পারেন।

জীবনরেখায় যদি কাটাকুটির চিহ্ন বেশি থাকে তাহলে তা একজন ব্যক্তির জীবনের শারীরিক সমস্যা নির্দেশ করে। যদি পাতলা রেখাগুলি জীবনরেখা কেটে দেয়, তাহলে এর অর্থ হল যে ব্যক্তি পারিবারিক জীবনে সমস্যায় পড়তে পারে। জীবন রেখায় বৃত্ত, তারকা চিহ্ন এবং কালো তিল হস্তরেখায় ভাল বলে বিবেচিত হয় না। এই ধরনের চিহ্ন  দুর্ঘটনার ইঙ্গিত দেয়।