অবশেষে আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়া শিবিরের অন্তর্ভুক্ত হলেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি

9
অবশেষে আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়া শিবিরের অন্তর্ভুক্ত হলেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি

কেউ দলে থেকে কাজ করতে পারছিলেন না, কেউ আবার দলে থেকে মনের কথা বলতে পারছিলেন না! আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে পুরাতন রাজনৈতিক দল ত্যাগ করে নতুন রাজনৈতিক শিবিরে গমনের পূর্বে প্রাক্তন দলের বিরুদ্ধে এরকমই বিভিন্ন কারণ দর্শিয়েছেন রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা। দল-বদলের এই রাজনীতিতে নতুন নাম সংযোজিত হলো। দল ছাড়লেন আসানসোলের প্রাক্তন মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি! গেলেন বিজেপি শিবিরে।

দীর্ঘ প্রায় বেশ কয়েকমাস ধরেই রাজনীতির দোলাচলে দুলছিলেন তিনি। অবশ্য গত বছরের ১৯শে ডিসেম্বরেই বিজেপি শিবিরে যোগ দেওয়ার কথা ছিল তার। তবে তা হয়ে ওঠেনি কারণ বিজেপি শিবিরের বেশ কিছু নেতাকর্মী তাকে দলে নিতে চাননি। কিন্তু বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে পুরাতন সকল সমীকরণ বদলে যাচ্ছে। তাই এবার আনুষ্ঠানিকভাবেই গেরুয়া শিবিরে যোগদান করতে জিতেন্দ্র তিওয়ারির আর কোনো বাধা রইলো না।

মঙ্গলবার বৈদ্যবাটিতে বিজেপির তরফ থেকে আয়োজিত একটি জনসভায় আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়া শিবিরের অন্তর্ভুক্ত হলেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি। উল্লেখ্য, এর আগে যখন তার বিজেপি শিবিরে যোগদান করার কথা উঠেছিল তখন তার তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। এখন সেই বাবুলই জিতেন্দ্রকে দলে সাদরে অভ্যর্থনা জানালেন।

এদিন গেরুয়া শিবিরের দলীয় পতাকা হাতে তুলে নিয়ে জিতেন্দ্র তিওয়ারি বলেছেন, আজ থেকে স্বাধীনভাবে মনের কথা বলার সুযোগ পাবেন তিনি। তাকে দলের অন্তর্ভুক্ত করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, বিজেপি বাংলায় যে পরিবর্তনের ডাক দিয়েছে, জিতেন্দ্র তিওয়ারি সেই পরিবর্তনের শরীক হলেন। তৃণমূল থেকে উনি মনের কথা বলতে পারতেন না। প্রকাশ্যে জয় শ্রীরাম বলতে পারতেন না। তবে মনে মনে বলতেন!