কৃষক বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লি, কৃষকদের দিল্লি চলো অভিযান আটকাতে বদ্ধপরিকর প্রশাসন

24
কৃষক বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লি, কৃষকদের দিল্লি চলো অভিযান আটকাতে বদ্ধপরিকর প্রশাসন

কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি আইন নিয়ে কৃষকদের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ ক্রমেই অন্য মাত্রা ধারণ করছে। পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরাখণ্ড, রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ এবং কেরল থেকে অন্তত ৫০০টি কৃষক সংগঠন একজোট হয়ে দিল্লি অভিযানে অংশগ্রহণ করছেন। আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা নির্বিশেষে এই দিল্লি অভিযান সফরের সঙ্গী হয়েছেন। দিল্লি পৌঁছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে সরাসরি তারা তাদের অভাব-অভিযোগ জানাতে চান।

উল্লেখ্য, কৃষকদের এই দিল্লি চলো অভিযান আটকাতে বদ্ধপরিকর প্রশাসন। প্রশাসনের তরফ থেকে পুলিশি ব্যারিকেড, জলকামান, কাঁদানে গ্যাস, বালির বস্তার প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কোনো খামতি রাখা হচ্ছে না। কিন্তু কৃষকেরাও নাছোড়বান্দা। পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙেই তারা তাদের গন্তব্যের উদ্দেশ্যে এগিয়ে চলেছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের তিনটি নতুন কৃষি আইন রদ করতেই তাদের এই বিক্ষোভ প্রদর্শন চলছে।

উল্লেখ্য, শুধু পাঞ্জাব থেকেই ৫০ হাজার কৃষক দিল্লির উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছেন। তবে রাতের দিকে সংখ্যাটা আরো বাড়বে বলেই জানিয়েছে সংযুক্ত কিষান মোর্চা এবং অল ইন্ডিয়া কিষান সংঘর্ষ কোঅর্ডিনেশন কমিটি। কারণ, পাঞ্জাব থেকে আরও কৃষক দিল্লির উদ্দেশ্যে আসছেন। তবে উত্তর প্রদেশ থেকে আগত ২ হাজার কৃষকের একটি দলকে যোগীর প্রশাসন রামপুরেই আটকে দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি আইন ২০২০ যখন সংসদে বিল হিসেবে পেশ করা হয়েছিল তখন থেকেই এই বিলের বিরোধিতা করতে শুরু করেছিলেন কৃষকেরা। কেন্দ্র বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির নেতৃত্বে এই বিরোধিতা ক্রমশ আন্দোলনের পর্যায়ে পৌঁছায়। কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার অবশ্য বিরোধী কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চেয়েছিলেন। তবে কৃষকেরা কোনোরকম আলোচনায় বসতে আগ্রহী নন। তাদের একটাই দাবি, অবিলম্বে নতুন কৃষি আইন বাতিল করা হোক। নতুবা তারা তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। দিল্লিতে তার নজির স্পষ্ট।