অতিরিক্ত অহংকারে পতন! এখন পান্তা ভাত খেয়ে দিন কাটছে রানু মন্ডলের

40
অতিরিক্ত অহংকারে পতন! এখন পান্তা ভাত খেয়ে দিন কাটছে রানু মন্ডলের

“পান্তা ভাত খেয়ে কি আমার থাকা উচিত?”, প্রশ্নকর্তা রানাঘাটের রানু মন্ডল। রানু মন্ডলকে চেনেন না এমন মানুষ এদেশে নেই। একটা সময় স্টেশন চত্বরে গান গেয়ে নিত্যযাত্রীদের মনোরঞ্জন করে জীবনধারণের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ উপার্জন করতেন তিনি। সেখানেই এক সহৃদয় ব্যক্তির সংস্পর্শে এসে রাতারাতি গ্লামার দুনিয়ায় পৌঁছে যান রানু মন্ডল।

অসাধারণ গায়কীর গুনে স্টেশন চত্বরের ভিক্ষাজীবী থেকে রাতারাতি পৌঁছে যান বি টাউনের দুনিয়ায়। অর্থ, সম্মান, যশ, খ্যাতি, একজন শিল্পীর বেঁচে থাকার জন্য যা কিছু প্রয়োজন, সবই পেয়েছিলেন তিনি। তবে নিজের কিছু ভুলের জন্য তা ধরে রাখতে পারলেন না রানু মন্ডল। যেমন রাতারাতি বিখ্যাত হয়েছিলেন, তেমনই রাতারাতি ইন্ডাস্ট্রি থেকে হারিয়ে গেলেন রানু মন্ডল।

সমালোচকদের মতে, রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়ে অহংকারী হয়ে পড়েছিলেন রানু। যে অনুরাগীদের প্রশংসায় ভরে উঠেছিল তার আঁচল, তাদের সঙ্গেই খারাপ ব্যবহার করে রীতিমতো ট্রোল হয়েছিলেন তিনি। যার ফলও পেয়েছেন হাতে নাতে। বলিউড থেকে আবারো রানাঘাট স্টেশনেই ফিরে আসতে হয়েছে তাকে। তার সঙ্গে আবারো আগের মত কষ্টেসৃষ্টে দিন গুজরান করতে হচ্ছে রানুকে।

কেমন আছেন তিনি? তা জানার জন্য সংবাদকর্মীরা তার বাড়িতে হাজির হন। সংবাদ কর্মীদের কাছে নিজের কষ্টের কথা প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি জানিয়েছেন, পরিস্থিতি এমনই যে তাকে বাসি ভাত খেয়ে থাকতে হয়। যিনি এক সময় বলিউড ইন্ডাস্ট্রির একজন অন্যতম সেলিব্রেটিতে পরিণত হয়েছিলেন, তারকি এভাবে থাকা মানায়? সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুঁড়েছেন রানু।