বিদ্যুতের চরম সংকট বাংলাদেশে

8
বিদ্যুতের চরম সংকট বাংলাদেশে

বাংলাদেশে বিদ্যুতের সংকট চরমে উঠেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বিদ্যুতের সংকটের সঙ্গে মোকাবেলা করার জন্য বাংলাদেশের সরকার অতিরিক্ত একদিন স্কুল বন্ধ রাখতে চলেছে। সরকারি অফিস এবং ব্যাংকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ করা হবে বলে জানানো হয়েছে। বেসরকারি সংস্থাগুলি অবশ্য এই বিষয়ে নিজস্ব সিদ্ধান্ত নিতে পারবে বলে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে এখন বাংলাদেশের পেট্রল ডিজেলের জ্বালানির দাম রীতিমতো আকাশে উঠেছে। বাংলাদেশের বেশিরভাগ স্কুল শুক্রবার বন্ধ থাকে। এবার থেকে জানানো হয়েছে যে প্রতি সপ্তাহে শুক্রবারে পাশাপাশি শনিবারেও এবার থেকে বাংলাদেশের স্কুল বন্ধ থাকবে। সরকারি অফিস এবং ব্যাংকগুলি প্রতি বুধবার ৮ ঘণ্টার বদলে ৭ ঘন্টা খোলা থাকবে।

বর্তমানে বিশ্বজুড়ে পেট্রোল ডিজেলের পাশাপাশি বিদ্যুতের দাম উর্ধ্বমুখী। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ কার্যত গোটা পৃথিবীর উপর প্রভাব ফেলেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে ডিজেল চালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলির উৎপাদন সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে আছে। এই কারণে প্রতিদিন ১০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের উৎপাদন কমে গিয়েছে। এখন এই দেশের নাগরিকদের ঘন ঘন লোডশেডিং এর মুখে পড়তে হচ্ছে।

বর্তমান পরিচিতিতে গত মাসে বাংলাদেশে জ্বালানির দাম ৫০ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। যদিও সরকার দাবি করেছে রাশিয়া থেকে সস্তায় জ্বালানি আমদানি করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি রূখতে সরকার ব্যর্থ, এমনটাই দাবি করছে বিরোধীরা।