করোনা সংক্রমনের উৎস খুঁজতে চিনে যেতে চলেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা

9
করোনা সংক্রমনের উৎস খুঁজতে চিনে যেতে চলেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা

ঠেলার নাম বাবাজি, এতদিন অনেক চেষ্টা করে গেছে চীন সরকার। কিন্তু কোনোভাবেই এই মুহূর্তে আর ঠেকানো সম্ভব হলো না তাদের। করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর পরেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা অনেকবার চিনে যেতে চাইলেও তাদের অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিন্তু এইবার করোনা সংক্রমনের উৎস খুঁজতেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা চিনে যেতে চলেছেন। জানা গেছে আগামী 14 ই জানুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তদন্তকারী দল চীনের উদ্দেশ্যে রওনা দেবে।

আর এই খবর প্রথম প্রকাশ করেছে সেই দেশের নেশনাল হেলথ কমিশন। ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে নতুন করে বলার কিছুই নেই কারণ সারা পৃথিবীব্যাপী মানুষ এই ভাইরাসের তাণ্ডব সহ্য করেছে। 2019 সালের শেষের দিকে চীনের উহান প্রদেশ থেকে এই ভাইরাসের খোঁজ মেলে। যা ধীরে ধীরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষকে সংক্রমিত করে তুলে। আমেরিকা ফ্রান্স ব্রিটেন জার্মানি রাশিয়া ভারত এই সমস্ত দেশে প্রথম হানা দেয় করোনাভাইরাস। সেই কারণেই এই সমস্ত দেশের সরকার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওপরে চাপ সৃষ্টি করে ও এরপরেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাদের তদন্তকারী একটি দল চীনে পাঠাতে উদ্যোগী হয়।

এইসব অবস্থার মধ্যেই তদন্তকারী দলের দুজন চীনে পৌঁছে গেলেও তাদের এয়ারপোর্টে আটকে দেওয়া হয়। এরপরেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন, ও জানিয়ে দেয় চীন তাদের বিশেষজ্ঞ দলকে বেজিংয়ে প্রবেশ করতে দেয়নি। কিন্তু পরবর্তীতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফ থেকে চীনকে জানানো হয় এই মিশন তাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ? কিছুদিন পরেই চীন তাদের মত বদল করে কিন্তু সেই তদন্তকারী দল কে ইয়োহান এ প্রবেশ করতে দেওয়ার অনুমতি এখনো দেয়া হবে কি না তা নিয়ে স্পষ্ট নয় কেউ।

স্বাভাবিকভাবেই চীনের মতিগতি বোঝা দায়, প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তিনি সরকারকে বারবার দোষারোপ করেছে এমনকি চীন যে তথ্য গোপন করছে সেই কথাও বলেছেন তিনি। একটি রিপোর্টে ধরা পড়েছে চীন সরকার দেশের মৃত্যুসংখ্যা নিয়েও তথ্য গোপন করেছে আর যেটা জানতেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তদন্তকারী দল উহানে যেতে চায়, কিন্তু আগামী দিনে সেই অনুমতি জিনপিং সরকার তাদের দেবে কিনা সে নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।