মুখ্যমন্ত্রী জেলে থাকলেও বাংলা জিতবে! বিরোধী শিবিরের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

9
মুখ্যমন্ত্রী জেলে থাকলেও বাংলা জিতবে! বিরোধী শিবিরের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

“ক্ষমতা থাকলে গ্রেফতার করে দেখাও, মুখ্যমন্ত্রী জেলে থাকলেও বাংলা জিতবে!” বাঁকুড়া জেলা সফরে গিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক শিবির গুলির প্রতি রীতিমতো রণংদেহী ভাবমূর্তি ধারণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিরোধীদের প্রতি তার কড়া বার্তা, তাদের ক্ষমতা থাকলে তারা তৃণমূল সুপ্রিমোকে জেলেও পাঠাতে পারে। তাতে বিন্দুমাত্র কিছু এসে যায় না তার। তিনি নিজে জেলে থাকলেও বাংলা জিতবেই।

বুধবার বাঁকুড়া জেলা সফরে অংশগ্রহণ করে সিপিএম-কংগ্রেস-বিজেপি, তিন বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরের প্রতি রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেছেন, বাঁকুড়ার একটি আসনও বিজেপি পাবে না। সিপিএমের ভাগ্যেও একটিও আসন জুটবে না। সিপিএম এবং বিজেপিকে একযোগে কটাক্ষ করে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য, যারা আগে সিপিএম করতো, তারাই আজ বিজেপি দলে যোগ দিয়েছে। রং বদলিয়েছে, তবে সিপিএমের সেই হার্মাদবাহিনী এখন কার্যত বিজেপির হার্মাদ বাহিনীতে পরিণত হয়েছে।

বিরোধী তিন রাজনৈতিক শিবিরের সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেছেন, বাঁকুড়ায় শান্তি বজায় আছে। কংগ্রেস, বিজেপি এবং সিপিএমের এটা সহ্য হচ্ছে না। তিন বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরকে জগাই-মাধাই-গদাই হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, এই তিনটি বিরোধীদল একজোট হয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়ছে। বিরোধী দলগুলির বিরুদ্ধে টাকার লোভ দেখিয়ে তৃণমূল নেতাদের ভাঙ্গানোর অভিযোগও তুলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

উল্লেখ্য, বিহারে বিজেপির জয় বাংলার রাজনীতিকেও প্রভাবিত করেছে। বিহারে বিজেপির আশাতিত জয়লাভ বঙ্গ বিজেপির মনের জোর বাড়িয়ে দিয়েছে। সে প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, বিহারে যা হয়েছে তা হারেরই সামিল। এটা জিৎ নয়। বিরোধী রাজনৈতিক দল গুলির সঙ্গে তৃণমূল দলের তুল্য মূল্য বিচার করতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, আজকের রাজনীতিতে সবথেকে বেশি লোভী হলো সিপিএম, বিজেপি ভোগী এবং তৃণমূল দল হল প্রকৃত ত্যাগীদের দল। তাই দলে থাকতে হলে লোভের বশবর্তী হওয়া যাবে না বলেই দলীয় কর্মীদের বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।