হয় মাস্ক পড়ুন আর না হয় পটল তুলুন, সচেতনতা বাড়াতে অভিনব উদ্যগ শিলিগুড়িতে

19
হয় মাস্ক পড়ুন আর না হয় পটল তুলুন, সচেতনতা বাড়াতে অভিনব উদ্যগ শিলিগুড়িতে

একটা শ্লোগান শোনা যাচ্ছিল। তাহলো হয় মাস্ক পড়ুন আর না হয় পটল তুলুন। এই বলতে বলতে সচেতনতায় প্রচারে রাস্তায় নামলেন কয়েকজন যুবক। পটল যদি তুলতে না পারেন তাহলে পটলের মালা পড়ুন। সেখানে কারোর মুখেই মাস্ক ছিল না। থাকলেও তা আবার নাকের তলায়। এই পরিস্থিতিতে মাস্ক ছাড়া রাস্তায় বেরোলে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক পরিমাণে বেশি। সব জায়গায় মাস্ক এমনকি আবার দুটো করে মাস্ক পরতে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন।

এমত অবস্থায় অনেকেই মাস্ক করছেন না। দেখা গেছে মাস্ক পড়ছেন অনেক মানুষ কিন্তু অনেক মানুষ আবার সেই মাস্ক নাকের নিচে নামিয়ে রেখেছে তাতে কি কোন লাভ হচ্ছে? উত্তর কিন্তু কারো জানা নেই। আর এই নিয়ে নানাভাবে সচেতনতা অবলম্বন করার প্রচার এনাবলিং শিলিগুড়ির কিছু যুবকরা। পটলের মালা হাতে নিয়ে রাস্তার বুকে নামলেন সেই যুবকরা। কোন মানুষের মাস্ক নাক থেকে নামানো থুতনির কাছে। অথচ তারা রাস্তায় অনবরত ঘুরে যাচ্ছেন। এই দেখে এরকম নানা জনের গলায় ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে সেই পটলের মালা। তবে সেই মালা কিন্তু আর ফেরত নেয়া হচ্ছে না তা থাকছে তাদেরই গলায়। সেই মালা পরেই তারা বাড়িতে যাচ্ছেন।

করোনাকালে সচেতনতায় শহরের বুকে নেমেছে শিলিগুড়ির পড়ুয়াদের এই যুব সংগঠন। তারাই এই কাজটি সতর্কভাবে করছে।শনিবার টিকিয়া পাড়ার বাজারে তারা মাইক হাতে প্রচার নাবেন। যেখানে যেখানে তারা দেখেছেন মাস্ক ছাড়া মানুষ বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন কিংবা মাস্ক নাক থেকে নাবিয়ে থুতনি বা গলার কাছে ঝুলছে সেখানে তারা পটলের মালা পড়িয়ে দিয়েছেন। এই কারণে বেজায় লজ্জা পেয়ে ভুল স্বীকার করেন সেখানকার অনেক মানুষ।

কেউ আবার সেই পটলের মালা দেখে মাস্ক উঠিয়ে হুট করে মুখে দিয়ে দিলেন। আয়োজকরা জানিয়েছেন এই সময়ে করোনার যা অবস্থা তাতে মাস্ক ছাড়া কেউ বের হলে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক শতাংশ বেশি। সেই কারণে মৃত্যুকে ব্যঙ্গ করে পটল তুলতে বলা হয়ে থাকে। মানুষকে বোঝাতে পটলের মালা নিয়ে রাস্তায় নেমেছি। যেখানেই চোখে পড়বে কেউ মাস্ক ঠিকঠাক করেনি তাদের গলায় মালা পরিয়ে দেয়া হবে। তাদের এই চেষ্টা সব মহলে প্রশংসার স্থান পেয়েছে।