“হয় চাকরি দিন, নয়তো বিষ দিন!” মুখ্যমন্ত্রীর সভার শেষ লগ্নে প্ল্যাকার্ড হাতে উঠে দাঁড়ান একদল মহিলা

12

গতকাল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে নন্দীগ্রামে রাজ্য শাসকদলের তরফ থেকে একটি জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল। এই জনসভা মঞ্চে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনে ভবানীপুরের পাশাপাশি নন্দীগ্রামেও প্রার্থী হিসেবে দাঁড়াতে চান তিনি! রাজনৈতিক মহলের কাছে এ ছিলো রীতিমতো এক বড় চমক। তবে সেই সভায় ছন্দপতন হল যখন সভার মাঝখানে হঠাৎই প্ল্যাকার্ড হাতে বিশেষভাবে সক্ষম শিক্ষক নিয়োগের দাবি জানাতে শুরু করলেন একদল মহিলা।

এদিন সভার প্রায় শেষ লগ্নে এসে একদল মহিলা প্ল্যাকার্ড হাতে উঠে দাঁড়ান। মুখ্যমন্ত্রীকে তারা তাদের অভাব অভিযোগ জানান। বিক্ষোভকারীদের দাবি, ২০০৯ সালের পর থেকে রাজ্যে বিশেষভাবে সক্ষম শিক্ষক নিয়োগ করা হয়নি। অথচ নিয়ম অনুসারে প্রতিটি স্কুলে অন্তত দু’জন করে বিশেষ শিক্ষক নিয়োগ করতে হবে। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তাদের কাতর আর্জি, “দিদি আমরা আপনার পাশেই আছি। আমাদের বিষয়টা একটু দেখুন!”

এমনকি তাদের চিৎকার করে বলতে শোনা যায়, “আমাদের বিষয়টা একটু দেখুন, নতুবা আমাদের আত্মহত্যা করতে হবে!”। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তাদের এও বলতে শোনা গিয়েছে, “হয় চাকরি দিন, নয়তো বিষ দিন!” বিশেষ শিক্ষক নিয়োগের দাবির পাশাপাশি এদিন স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের বকেয়া ভাতার দাবিও তুলেছেন। তবে মুখ্যমন্ত্রী তরফ থেকে অবশ্য এ বিষয়ে বিশেষ কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে মেদিনীপুরের বনগাঁতেও মুখ্যমন্ত্রীর সভা চলাকালীন মহিলারা প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছিলেন।

সেই বার অবশ্য সভার মাঝে প্ল্যাকার্ড নিয়ে দাবি পেশ করাতে মুখ্যমন্ত্রী বেশ ক্ষুন্নই হয়েছিলেন। তবে এদিন অবশ্য তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি।