ডিম না মুরগি কোনটা আগে? দেখে নিন বিজ্ঞানীদের চুল চেরা বিশ্লেষণ

50
ডিম না মুরগি কোনটা আগে? দেখে নিন বিজ্ঞানীদের চুল চেরা বিশ্লেষণ

ছোটবেলায় সুকুমার রায়ের আবোল তাবোল কবিতা টি অনেকেই পড়েছি। তাতে ছিল অনেক ধাঁধা, যার উত্তর ছিল জানা। ফড়িংয়ের কটা ঠ্যাং? আরশোলা কি কি খায়? কাকে বলে অরণি? জানবে কি করে তোমরা তো নোটবুক পরনি।এইরকম অনেক ধাঁধাঁর মত একটি ধাঁধা আমরা কখনই সমাধান করতে পারিনি। সেই কথাটি হলো ডিম আগে নাকি মুরগি! এই ধাঁধা টি আসলে অনেকটা বৃত্তের মত। যে বৃত্তের শুরু এবং শেষ টা নেই। খানিকটা সমান্তরাল সরলরেখার মত। বহু বিজ্ঞানী থেকে সমাজবিদ বহু যুগ ধরে এই জটিল ধাঁধা সমাধান খুঁজে চলেছেন। কিন্তু ব্যাপারটা যেন একটি রহস্যই থেকে গেছে।

কিন্তু বহু যুগের গবেষণার পর প্রথম এই ধাঁধাটির সমাধান পাওয়া গেছে।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি গবেষণার পর জানা গিয়েছে, কার অস্তিত্ব পৃথিবীতে আগে, মুরগি নাকি ডিম।এনটিআর নামক একটি মার্কিন ওয়েবসাইট জানিয়েছে, এই ধাঁধাটি বহুদিনের পুরনো। তাই বহুদিনের গবেষণার ফসল আজ পাওয়া গেছে। মার্কিন সাংবাদিক রবার্ট ক্রুলউইচ এই নিয়ে রীতিমতো গবেষণা করেছেন।ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে যে,কয়েক শত বছর আগে পৃথিবীতে মুরগির মতো দেখতে একটি বড় আকারের পাখি ছিল।সেই পাখিটি সঙ্গে মুরগির জিনগত মিল থাকা সত্ত্বেও সেটি কিন্তু মুরগি ছিলনা।

বিজ্ঞানীদের বক্তব্য, এই বিশাল আকারের পাখিটি আসলে ছিল প্রোটো চিকেন। সেই পাখি একদিন একটি ডিম পেরেছিল। সেই ডিমে মুরগির পুরুষসঙ্গী কিছু নতুন বৈশিষ্ট্য যোগ করে। তার ফলে কিছু বিবর্তন গত পরিবর্তন ঘটে সেই ডিমে। এই পরিবর্তন তখনকার ওই পুরুষ কিংবা নারী মুরগির ডিম থেকে বেশ অনেকটাই আলাদা ছিল।বিজ্ঞানীদের দাবি অনুযায়ী,ওই বিবর্তনের ফলে ডিমটি ফোটে যে বাচ্চাটি বেরিয়েছিল ওই নতুন প্রজাতির পাখিটি আসলে আজকের মুরগির আদি এবং প্রকৃত পূর্বপুরুষ।

এরপর কয়েক হাজার বছর ধরে পৃথিবীতে পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে নিতে মুরগির শরীরে বহু পরিবর্তন হয়েছে। আদি মুরগির সঙ্গে এখনকার মুরগির পার্থক্য অনেকটাই।তবে ডিমের মধ্যে মিউটেশন ঘটে যাওয়ার ফলে ওই আদি মুরগির জন্ম হয়েছিল।তাই এই সিদ্ধান্তে আসা যায় যে ওই বিবর্তিত ডিউটির আগে কোন মুরগির অস্তিত্ব ছিলনা। অর্থাৎ পৃথিবীতে মুরগির আগে এসেছিল ডিম। মুরগি এসেছে পরে।