ভারতীয় সেনাদের সুবিধা করতে কুঁজ যুক্ত বিশেষ উট দের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ডিআরডিও

6
ভারতীয় সেনাদের সুবিধা করতে কুঁজ যুক্ত বিশেষ উট দের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ডিআরডিও

আমরা সবাই জানি ভারতীয় সেনাদের কাছে সামরিক অস্ত্র শস্ত্র ছাড়াও বিভিন্ন শিকারী পশুর উপস্থিতি কতটা গুরুত্বপূর্ণ। সেটা কুকুর থেকে শুরু করে পাহাড়ি মরুভূমি অঞ্চলে উট পর্যন্ত। সম্প্রতি কুঁজ যুক্ত বিশেষ উট দের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ভারতীয় সেনা। এক কুঁজ যুক্ত উড ভারতীয় সেনার কাছে থাকলেও দুই কুঁজ যুক্ত উট তেমন একটা নেই। এই উট গুলো পাহাড়ি এলাকায় পেট্রোলিং এর সময় খুবই উপকারী। সহজেই অনেক বেশি পরিমাণ জিনিসপত্র সামগ্রী এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নিয়ে যেতে সক্ষম। এই ধরনের উটকে যদি ঠিকমত প্রশিক্ষণ দেওয়া যায় তাহলে সীমান্ত রক্ষার কাজেও দারুন ভাবে ব্যবহার করা যাবে।

স্বাভাবিকভাবেই গত বছরের জুন মাস থেকে ভারত ও চীনের মধ্যে যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। তার এখনও অবসান ঘটেনি। প্রথম থেকেই চীনের লাল ফৌজরা ভারতে প্রবেশ করার জন্য মুখিয়ে রয়েছে। গত কয়েক মাস আগে সীমান্তে চীনের সেনাকে আটক করেছিল ভারতীয় সেনা। মোটকথা চীনের সেনাদের এই বাড়বাড়ন্ত রুখতে সীমান্তে প্রচুর সংখ্যায় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই পাহাড়ের চূড়ার অংশে বসানো হয়েছে ফন্ট ইয়ার ফোর্স। বিশেষ করে এই পার্বত্য অঞ্চলে প্রয়োজনীয় সামগ্রী খাদ্য সামরিক অস্ত্র পৌঁছে দেওয়ার জন্যই উট ব্যবহারের কথা চিন্তা করা হয়েছে। তাছাড়া এই সমস্ত উটকে যদি সঠিক প্রশিক্ষণ দেওয়া যায় তাহলে নজরদারির কাজেও ব্যবহার করা যাবে।

এক কুঁজের উটের থেকে দুই কুঁজের উট খুবই বেশি উপকারী, কারণ এই সমস্ত উর অন্যদের তুলনায় কম সময়ে বেশি দূরত্ব অতিক্রম করতে পারবে, সাথে খাড়া পাহাড়ের ঢাল সবকিছুই অবলীলায় অতিক্রম করতে পারবে এমনকি সর্বোচ্চ ১৭ হাজার ফুট পর্যন্ত পেট্রোলিং এর কাজে লাগানো যাবে তাদের। এক কুঁজের উট যেমন ৪০ কেজি ওজন বইতে সক্ষম তেমনভাবেই দুই কুঁজের উট ১৭০ কেজি ওজন বইতে সক্ষম। বর্তমানে সবকিছু বিচার করে ডিআরডিও এই সমস্ত উট দের প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু করেছে। যেকোনো আবহাওয়ার মধ্যেই এরা অবলীলায় তাদের কাজ করতে পারে। ১৫ থেকে ১৮ হাজার ফুট পর্যন্ত খুব সহজেই পেট্রোলিং এর কাজে লাগানো যাবে উপযুক্ত সরঞ্জাম খাবার সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া যাবে এদের মাধ্যমে।