দুর্গা মহাষ্টমীর তিথিতে করুন এই কাজ পূর্ণ হবে সকল মনস্কামনা

72
দুর্গা মহাষ্টমীর তিথিতে করুন এই কাজ পূর্ণ হবে সকল মনস্কামনা

দুর্গা মহাষ্টমীর তিথিতে সন্ধিপূজা, মাতৃ আরাধনার এক অন্যতম শুভ মুহূর্ত। পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, মহাষ্টমীর দিন সন্ধিপুজোর তিথিতেই আসুরিক শক্তির বিনাশ ঘটিয়েছিলেন মা দুর্গা। তাই দুর্গোতৎসবে সন্ধিপুজো এক অন্যতম প্রধান উৎসব হিসেবে বিবেচিত। শাস্ত্র অনুযায়ী, সন্ধিপুজোর তিথিতে মা দুর্গার শক্তি এবং তেজ সবথেকে বেশি থাকে। তাই এই সময়ে মায়ের আরাধনা করলে ভক্তের সকল মনস্কামনা পূর্ণ হয়।

শাস্ত্র অনুযায়ী, দুর্গা অষ্টমী তিথিতে ভক্তিভরে সন্ধিপূজা করলে দুর্গা মায়ের আশীর্বাদ স্বরূপ একসঙ্গে সাতটি ফল পাওয়া যায়। কোনো কাজে যদি বাধা আসে, দীর্ঘদিনের প্রয়াস সত্বেও তা যদি কোনো না কোনো অজ্ঞাত কারণে সর্বদাই ভেস্তে যায়, তাহলে ভক্তিভরে সন্ধিপুজো করার নিদান দেয় শাস্ত্র। তাহলেই সকল বাধা কেটে গিয়ে মনোবাঞ্ছা পূরণ হবে।

পাশাপাশি, মহাষ্টমীর মন্ত্রে রয়েছে প্রভূত শক্তি। এই মন্ত্র জপ করলে মানসিক শক্তি আসে। নতুন উদ্যোমে সাহসিকতার সঙ্গে জীবনে পথ চলার অনুপ্রেরণা মেলে। শুধু তাই নয়, পারিবারিক সুখ-শান্তি বজায় রাখতেও সন্ধিপূজার নিদান দেওয়া হয়। শাস্ত্র মতে, ১০৮টি পদ্ম দিয়ে দেবীর আরাধনা করলে পারিবারিক অশান্তি দূর হয়। অষ্টমী তিথির সন্ধি পুজা ভক্তের গ্রহের দোষ কাটিয়ে ভাগ্য পরিবর্তনের সক্ষম বলেই বিশ্বাস করা হয়।

আরো আছে, কেউ যদি দীর্ঘদিন অসুখে ভুগছেন, তাহলে তিনি যদি ভক্তিভরে সন্ধি পূজা করে মায়ের আরাধনা করেন তাহলে তার রোগমুক্তি ঘটবে। শরীর সৌন্দর্যময় হবে। মানসিক প্রশান্তি আসবে। মন শুদ্ধ হবে এবং হতাশা, ভয়, দুঃখ দূর হবে। রাতে খারাপ স্বপ্ন দেখার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার হাত থেকে মুক্তি মিলবে। মনের সকল সৎ ইচ্ছা পূরণ হবে। তাই শারীরিক, মানসিক এবং ভাগ্যের দোষ কাটাতে সন্ধিপূজার ক্ষণে ভক্তিভরে মায়ের পূজা করুন।