বাড়ির নেতিবাচক শক্তি দূর করতে ভূত চতুর্দশীর দিন করুন এই কাজ গুলি

19
বাড়ির নেতিবাচক শক্তি দূর করতে ভূত চতুর্দশীর দিন করুন এই কাজ গুলি

দূর্গা পূজার পর লক্ষ্মীপুজো মিটে গেলেই আমাদের সকলের কাছে আরও একটি বড় উৎসব পালন করার কথা মনে হয়, তাহলে শ্যামা পূজো অথবা কালীপুজো। কালীপুজো অমাবস্যা তিথিতে পালন করা হয়। কিন্তু তা ঠিক আগের দিন পালন করা হয় ভূত চতুর্দশী। মনে করা হয় যে এই দিন রাতে প্রেত লোক থেকে আত্মরা মর্ত্যে নেমে আসে।

এই ভূত চতুর্দশীর দিন আমরা আমাদের বাড়ির আনাচে-কানাচে ১৪ টি মোমবাতি জ্বালিয়ে সেদিন চোদ্দ শাক খেয়ে এই দিন পালন করি। কিন্তু এই দিন এমন অনেক কিছু আছে, যা করতে নেই। এই দিন এই সমস্ত কাজ করলে সংসারে হতে পারে ঘোর অমঙ্গল। তাহলে আসুন আজকে জেনে নিন কোন কোন কাজ আমরা ভুলেও সেদিন করবো না।

কালীপুজোর রাতে বা তার আগের দিন রাতে ভুলেও কখনো শ্মশান অথবা কবরস্থানে যাবেন না। তান্ত্রিকদের মত অনুযায়ী, এইদিন শ্মশানে অথবা কবরস্থানে এক ধরনের নেগেটিভ শক্তি বিরাজ করে। আপনি যদি সেদিন শ্মশান অথবা কবরস্থানে যান, তাহলে আপনার এবং আপনার পরিবারের ক্ষতি হতে পারে।

এই দিন সন্ধ্যাবেলা কখনো ঝাড়ু দিয়ে বাড়ি পরিষ্কার করবেন না। মনে করা হয় যে,এই দিন সন্ধ্যাবেলা ঝাড়ু দিয়ে বাড়ি পরিষ্কার করলে মা লক্ষ্মী অসন্তুষ্ট হন।তার ফলই লক্ষীদেবী আপনার বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে পারে।

এই দিন সন্ধ্যার পর কখনো দুধ অথবা দুধজাতীয় খাবার ভুলেও খাবেন না। কেউ যদি আপনার থেকে চায় তাহলে আপনি দেবেন না।মনে করা হয় যে এটি আপনার বাড়ি থেকে পজিটিভ শক্তি কমে যাবে এবং নেগেটিভ শক্তি বৃদ্ধি পাবে।

এই দুইদিন রান্না করার পর রান্নাঘর পরিষ্কার রাখতে হয়। বাসনপত্র ভালো করে পরিষ্কার রাখবেন। সবকিছু পরিষ্কার থাকলে আপনার এবং আপনার পরিবারের মঙ্গল হবে।

ভূত চাতুর্দশি এবং কালীপুজোর রাতে অবশ্যই সন্ধ্যার পর প্রদীপ জ্বালাবেন। এতে করে আপনার বাড়ির অশুভ শক্তি দূর হয়ে যাবে। যদি সম্ভব হয় তাহলে সারারাত আলো জ্বালিয়ে রাখতে পারেন।

এই দুইদিন কোনভাবেই রাতে চুল খুলে ঘুমাবেন না।রাতে খোলা চুলে ঘুমালে নেগেটিভ শক্তি ভীষণভাবে আকর্ষিত হয়। এর ফলে আপনার এবং আপনার সন্তানের ক্ষতি হতে পারে। এছাড়া মহিলারা চুল খোলা রাখলে রাতে, মা লক্ষ্মী অসন্তুষ্ট হন।