বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের দিকে ধেয়ে আসছে নিম্নচাপ, দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা

29
বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের দিকে ধেয়ে আসছে নিম্নচাপ, দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা

করোনার মধ্যে নানা বিধিনিষেধ মেনেই উৎসবের আনন্দে মেতে উঠতে চায় বাঙালি। তবে, বাঙালির আনন্দ মাটি করতে পূর্ব আকাশে চোখ রাঙাচ্ছে নিম্নচাপ। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের দরুন ষষ্ঠী থেকে নবমী পর্যন্ত প্রবল ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। রাজ্যের প্রশাসনের তরফ থেকেও বিপর্যয় মোকাবিলা সংক্রান্ত সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হচ্ছে।

সতর্কবার্তা জারি হতেই মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। পাশাপাশি উপকূলবর্তী এলাকায় বিপর্যয়ের সম্ভাবনা থাকায় সেখানে আগে থেকেই বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী মোতায়েন করে রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপ ক্রমশই শক্তি বাড়িয়ে পশ্চিম ও মধ্য বঙ্গোপসাগর হয়ে বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের দিকে এগিয়ে আসছে।

উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে নিম্নচাপের প্রভাব সবথেকে বেশি থাকবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। যার জেরে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণের সতর্কবার্তা রয়েছে। পাশাপাশি ষষ্ঠী থেকে অষ্টমী পর্যন্ত দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা যেমন উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুর, কলকাতা, হাওড়া, হুগলিতেও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা আছে।

এদিকে ঝোড়ো হাওয়ার দরুন সমুদ্র উত্তাল থাকার কারণে ইতিমধ্যেই যে সকল মৎস্যজীবী সমুদ্রের মাছ ধরতে গেছেন তাদের বৃহস্পতিবারের মধ্যে ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, দীঘা, মন্দারমনি, শংকরপুর, সাগরদ্বীপের সমুদ্রের ধারের সকল কাজ আপাতত বন্ধ রয়েছে। আগামী শুক্র এবং শনিবার সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায় ফেরি পরিষেবা বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।