করোনা টিকা নিয়ে ‌দীর্ঘক্ষনের রিংটোন প্রসঙ্গে এবার কেন্দ্রের সমালোচনা করলো দিল্লি হাইকোর্ট

15
করোনা টিকা নিয়ে ‌দীর্ঘক্ষনের রিংটোন প্রসঙ্গে এবার কেন্দ্রের সমালোচনা করলো দিল্লি হাইকোর্ট

বর্তমান করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় মানুষের হাতে একমাত্র অস্ত্র করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন। দেশের প্রতিটি মানুষ যদি ভ্যাকসিন না পান তাহলে ভারত থেকে করোনা নির্মূল করা সম্ভব হবে না। ভারতে ইতিমধ্যেই গণহারে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু হলে কি হবে? টিকা গ্রহণের জন্য রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করছেন দেশের নাগরিকেরা। কিন্তু টিকা কোথায়?

চাহিদার তুলনায় ভ্যাকসিনের যোগান দিতে অপারগ কেন্দ্রীয় সরকার। এহেন পরিস্থিতিতে আবার যেকোনো প্রয়োজনে কারোকে ফোন করলেই দীর্ঘক্ষন ধরে টিকা বার্তা শোনানো হচ্ছে। টিকা নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে অবগত করার প্রচেষ্টায় অংশগ্রহণ করেছে ভারত সরকার। অথচ টীকার অভাবে তা সম্পূর্ণ করা সম্ভব হচ্ছে না। তাহলে এই বার্তা দিয়ে লাভ কি? কেন্দ্রের কাছে প্রশ্ন তুলল দিল্লি হাইকোর্ট।

সম্প্রতি একটি মামলার শুনানির পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লি হাইকোর্ট করোনা টিকা নিয়ে ‌দীর্ঘক্ষনের রিংটোন প্রসঙ্গে কেন্দ্রের সমালোচনা করেছে। আদালতের বক্তব্য, “আপনাদের সংগ্রহে তো টিকাই নেই! অথচ প্রতিবার ফোন করার সময় দীর্ঘক্ষণ ধরে করোনা টিকা বার্তা শুনতে হচ্ছে। টিকা না থাকলে লোকে নেবে কি করে?”

মানুষকে সচেতন করার এই পদ্ধতি অত্যন্ত বিরক্তিকর বলে মন্তব্য করেছে দিল্লি হাইকোর্ট। প্রসঙ্গত দেশে এই পর্যন্ত মাত্র ১৮ কোটি মানুষ করোনার প্রথম টিকা নিতে পেরেছেন। ৪ কোটি মানুষের টিকার দুটি ডোজ সম্পন্ন হয়েছে। অর্থাৎ এই মুহূর্তে ১০ শতাংশ মানুষকেও টিকা দেওয়া সম্ভব হয়নি। হাইকোর্টের দাবি, প্রয়োজনে টাকা নিক কেন্দ্র, দেশের প্রতিটি মানুষকে টিকাকরন করা হোক।