করোনার মাঝেই হানা দিচ্ছে ঘূর্ণিঝড় দুজুয়ান, নিরাপদ স্থানে সরানো হল প্রায় ৫০ হাজার মানুষকে

12
করোনার মাঝেই হানা দিচ্ছে ঘূর্ণিঝড় দুজুয়ান, নিরাপদ স্থানে সরানো হল প্রায় ৫০ হাজার মানুষকে

সারা বিশ্বজুড়ে করোনার দাপটে মানুষ একেবারে বিপর্যস্ত। যদি সূক্ষ্মভাবে পর্যালোচনা করা যায় তাহলে দেখা যাবে, এখনো পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়নি করোনা। মানুষ এখনও দৈনিক একের পর এক আক্রান্ত হচ্ছে, বিশেষ করে গরীব দেশ গুলিতে উপযুক্ত পরিকাঠামোর না থাকায় তারা এখনও করোনার সাথে লড়াই করে যাচ্ছে। কিন্তু এর মধ্যেই এক অশনী সংকেত এর খবর দিল আবহাওয়া দপ্তর।

ইতিমধ্যেই ফিলিপিন্সের মানুষকে সতর্ক করা হয়েছে। কারণ সেখানে হানা দিয়েছে ঘূর্ণিঝড় দুজুয়ান। আর সেই কারণেই সেখানকার মানুষের অবস্থা একেবারে করুন হয়ে উঠেছে। শুধু ঘূর্ণিঝড় নয় সাথে তৈরি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। ইতিমধ্যেই সরকারের প্রচেষ্টায় ৫০ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই ঘূর্ণিঝড় দুজুয়ান ফিলিপিন্সের দক্ষিণ ও মধ্য অংশে হানা দিয়েছে। আর সেই কারণেই তৈরি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি, যাতে সমস্ত মানুষকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া যায় তার ব্যবস্থা করছে দেশের সরকার।

এই নিয়ে ফিলিপিন্সের সিভিল দপ্তর এর তরফ থেকে, একটি বুলেটিন পেশ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে ৫১ হাজার মানুষকে ইতিমধ্যেই সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে আজ সোমবার এই ঘূর্ণিঝড় স্থলভাগের উপরে আছে পড়তে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে। যাতে কোনোভাবেই কোনো দুর্ঘটনা ক্ষয়ক্ষতি না হয় সেই কারণেই আগে থেকেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আসলে প্রশান্ত মহাসাগরের রিং অফ ফায়ার এর মধ্যে সবথেকে অন্যতম দেশ ফিলিপিনস। তাই সমুদ্রের সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব সর্বপ্রথম ফিলিপিন্সের উপরেই পরে। এদিকে অবশ্য জুন থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাপক টাইফুনের প্রভাব পড়ে ফিলিপিন্সের উপর যার ফলে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি ঘটে। এমনকি কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি নষ্ট হয়ে যায় নিমেষে।