করোনার কারনে অন্যান্য সমস্ত রোগের চিকিৎসা বিঘ্নিত হচ্ছে যা আরো বড় বিপর্যয় ডেকে আনছে

5
করোনার কারনে অন্যান্য সমস্ত রোগের চিকিৎসা বিঘ্নিত হচ্ছে যা আরো বড় বিপর্যয় ডেকে আনছে

মহামারীর পরিস্থিতিতে এখন কোভিড-১৯ই রয়েছে লাইমলাইটে। এতে অন্যান্য সমস্ত রোগের চিকিৎসা বিঘ্নিত হচ্ছে। চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলিতে এখন করোনা রোগীদের চিকিৎসা ক্ষেত্রেই অধিক মনোনিবেশ করা হচ্ছে। এর ফলে যক্ষা, ক্যান্সারের মতো অন্যান্য মারাত্মক রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীরা অবহেলার শিকার হচ্ছে। এমনকি শিশুদের টিকা করনের ক্ষেত্রেও আসছে বাধা।

পরিস্থিতি যদি এমনই চলতে থাকে তাহলে, অদূর ভবিষ্যতে করোনার থেকেও আরো বড় বিপর্যয় নেমে আসতে চলেছে ভারতে। এমনটাই মনে করছেন বিদেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। সবথেকে বেশি বিপদের মুখে রয়েছে করোনা মহামারীর পরিস্থিতি যে শিশুদের জন্ম হয়েছে তারা। সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনাকালে বেশিরভাগ শিশুই বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেছে।

বহু শিশুকে এখনো পর্যন্ত জন্মের পরবর্তী টিকা গুলি দেওয়া সম্ভব হয়নি। আবার পৃথিবীর সমস্ত দেশের মধ্যে ভারতে যক্ষা রোগীর সংখ্যা সবথেকে বেশি। রিপোর্ট অনুযায়ী, এই মুহূর্তে ভারতে প্রায় ২৭ লক্ষ রোগী যক্ষা রোগে আক্রান্ত। তবে করোনা পরিস্থিতিতে যেভাবে চিকিৎসার পরিসেবা ব্যাহত হচ্ছে, তাতে আগামী দিনে এই সংখ্যাটা আরো বাড়তে পারে বলেই জানাচ্ছে পি ডি হিন্দুজা হসপিটাল এন্ড মেডিকেল রিসার্চ সেন্টার।

সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, বর্তমানে চিকিৎসার গাফিলতিতে কারণে ২০২৫ সালের মধ্যেই ভারতে প্রায় ৬৩ লক্ষ মানুষ যখন আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পি ডি হিন্দুজা হসপিটালের এক পালমোনোলজিস্ট জারির উদওয়াদিয়া জানালেন, অন্যান্য রোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে কয়েক দিন দেরি হলেও খুব একটা ক্ষতি হয় না। কিন্তু যক্ষা রোগের ক্ষেত্রে অবিলম্বে চিকিৎসা শুরু করা প্রয়োজন। এদিকে টিভি এবং করোনা রোগের লক্ষণ অনেকটা একই রকম। ফলে, রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রেও বিভ্রান্তির শিকার হচ্ছেন চিকিৎসকেরা।