কংগ্রেস দলনেতা রাহুল গান্ধী বাদল অধিবেশনে উপস্থিত না থাকায় বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন দলের একাংশ

4
কংগ্রেস দলনেতা রাহুল গান্ধী বাদল অধিবেশনে উপস্থিত না থাকায় বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন দলের একাংশ

আজ থেকে সংসদের বাদল অধিবেশন শুরু হয়েছে। তবে, আজকের অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন না কংগ্রেস দলনেতা রাহুল গান্ধী। শুধু আজকেই নয়, আগামী বেশ কয়েকদিন হয়তোবা সম্পূর্ণ অধিবেশনেই অনুপস্থিত থাকবেন তিনি। তবে, সংসদে তার অনুপস্থিতিতে বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন তার নিজের দলের সদস্যেরাই। বিহার এবং পশ্চিমবঙ্গের ভোটের পরিপ্রেক্ষিতে এবারের অধিবেশনে রাহুল গান্ধীর উপস্থিতি প্রয়োজন ছিল বলেই মনে করছেন তারা।

উল্লেখ্য, শনিবার ‌কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী বার্ষিক চেকআপের জন্য আমেরিকায় গেছেন। বিদেশ সফরে তার সঙ্গী হয়েছেন ছেলে রাহুল গান্ধী। কংগ্রেস দল সূত্রে খবর, চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে দেশে ফিরতে পারেন সভানেত্রী। ততদিনে সংসদের অধিবেশন শেষ হয়ে যাবে। এদিকে, বর্তমানে সংসদ অধিবেশনে যেখানে প্রশ্নোত্তর পর্বের কোনো সুযোগ দেওয়া হয়নি, সেখানে দেশের জলজ্যান্ত ইস্যুগুলিকে হাতিয়ার করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে জোর প্রতিবাদ করার জন্য রাহুল গান্ধীর উপস্থিতি প্রয়োজন ছিল বলেই মনে করছে কংগ্রেস দল।

তবে রাহুল গান্ধীর প্রতি দলের ক্ষোভ বহু পুরনো। কংগ্রেস দলের একাধিক নেতার দাবি, এর আগেও বহু গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক কার্যত এড়িয়ে গেছেন কংগ্রেস দলনেতা। যেমন, সংসদীয় কমিটি তরফ থেকে আয়োজিত প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত ১১টি বৈঠকে অনুপস্থিত ছিলেন রাহুল গান্ধী। একাধিক কংগ্রেস নেতার অভিযোগ, সিএএ-বিরোধী ইস্যু, দেশের করোনা পরিস্থিতি, ভারত-চীন সীমান্ত সংঘাত সংক্রান্ত একাধিক বিষয় নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হলেও, কার্যক্ষেত্রে তাকে পাওয়া যায় না।

তবে সমালোচকদের এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে রাহুল সমর্থকদের দাবি, ব্যক্তিগত কারণে সংসদে অনুপস্থিত হতে হয়েছে তাকে। এর সাথে রাজনীতি জড়ানো ঠিক নয়। তবে, সংসদের অধিবেশনে রাহুল গান্ধীর অনুপস্থিতি যে কেন্দ্রীয় শাসক দলের নিরিখে কংগ্রেস দলকে সংসদে অনেকটাই দুর্বল করে দিয়েছে, সে সম্পর্কে একমত সমালোচকেরা।