সীমান্ত বিতর্কের মাঝেই উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বহাই সুমদ্রে নৌ-মহড়া চালু করে দিল চীনা নৌ বাহিনী

6
সীমান্ত বিতর্কের মাঝেই উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বহাই সুমদ্রে নৌ-মহড়া চালু করে দিল চীনা নৌ বাহিনী

লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় ভারত চীন সীমান্ত বিতর্কের উত্তেজনা তুঙ্গে। এই মুহূর্তে ভারত এবং চীনের সেনাবাহিনী একে অপরের প্রতি বন্দুক উঁচিয়ে রেখেছে। এরই মধ্যে আবার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বহাই সুমদ্রের জিনহুয়াংদো বন্দরের কাছে ব্যাপক নৌ-মহড়া চালু করে দিল চীনা নৌ বাহিনী। কূটনীতিকদের মতে, পরোক্ষে আমেরিকাকে চাপে রাখতেই এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে চীন।

উল্লেখ্য, ভারত এবং চীনের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সীমান্ত বিতর্কের অবসান ঘটাতে মধ্যস্থতা করতে চেয়ে ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পাশাপাশি, দক্ষিণ চিন সাগর এবং তাইওয়ান  বিতর্ক নিয়েও আমেরিকার সাথে চীনের মতানৈক্য সৃষ্টি হয়েছে। ফলে, এই পরিস্থিতির মধ্যে উত্তর-পূর্ব ও পূর্ব উপকূলে চীনের এই বিশাল নৌ-মহড়াকে কার্যত আমেরিকার প্রতি শক্তি প্রদর্শন বলেই মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

চীনের সমুদ্র নিরাপত্তা প্রশাসনের তরফ থেকে জানা গেল, তিন দিনব্যাপী এই যুদ্ধ মহড়ায় সোমবার থেকেই উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বহাই সুমদ্রের জিনহুয়াংদো বন্দরের কাছে প্রথম দফার মহড়া শুরু হয়ে গিয়েছে। মঙ্গলবার এবং বুধবারে দ্বিতীয় দফার নৌ-মহড়ার জন্য পিত সাগরের দক্ষিণ অংশকে বেছে নেওয়া হয়েছে। এই নৌ-মহড়ায় ব্যাপকহারে গোলাগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে।

চীনের নৌ মহড়া যাতে কোনোভাবেই বিঘ্নিত না হয়, সেই জন্য পুরো এলাকাকে নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে দিয়েছে চীনা প্রশাসন। এই তিন দিন ওই এলাকায় সব ধরনের জাহাজ চলাচল নিষিদ্ধ। উল্লেখ্য, গত জুলাই মাস থেকে পূর্ব ও দক্ষিণ চিন সাগরে অন্ততপক্ষে দশ রাউন্ড মহড়া চালিয়েছে চীন। কূটনীতিকদের ধারণা, দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে আমেরিকার সাথে বিবাদের জেরেই বারবার নৌ মহড়া চালাচ্ছে চীন।