পাকিস্তানকে কালো তালিকার হাত থেকে বাঁচাতে নতুন পদক্ষেপ চীনের

11
পাকিস্তানকে কালো তালিকার হাত থেকে বাঁচাতে নতুন পদক্ষেপ চীনের

সারা বিশ্বে যখন পাকিস্তান “সন্ত্রাসবাদের আঁতুড়ঘর” হিসেবে পরিচিত, রাষ্ট্র সঙ্ঘের পক্ষ থেকে যখন সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়ার অভিযোগে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকা থেকে কালো তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার ভাবনা চিন্তা চলছে, ঠিক তখনই নিজের বন্ধুরাষ্ট্র পাকিস্তানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলো চীন। চীনের দাবি, সন্ত্রাসবাদ দমনে সব রকমের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান। চীনের এই দাবীতে অবশ্য, বিদ্রূপের ঝড় বইছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শুক্রবার চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাউ লিজিয়ান দাবি করেছেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে বিশ্বের প্রতিটি দেশ। তবে তার মধ্যেই সন্ত্রাসবাদ দমনে তীব্র প্রচেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান। এর জন্য পাকিস্তানকে অবশ্য অনেক আত্মত্যাগও করতে হচ্ছে। পাশাপাশি, আন্তর্জাতিক মহলে তার আবেদন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পাকিস্তানের এই প্রচেষ্টাকে যথাযোগ্য স্বীকৃতি এবং সম্মান জানানো হোক।

তিনি আরো বলেছেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে রয়েছে চীন। চীন কখনোই কোনো ধরনের সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপকে সমর্থন জানায় না। চীনা বিদেশ মন্ত্রকের এই বিবৃতিতে অবশ্য বিদ্রুপ করতে ছাড়ছেন না নেটিজেনরা। জঙ্গী সংগঠন এবং তাদের সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপ গুলির পেছনে পাকিস্তানের যে প্রভূত মদত রয়েছে, তা প্রায় সকলেই জানেন। ফলে, “বন্ধু রাষ্ট্র” পাকিস্তানকে ঘিরে এহেন মন্তব্যে স্বভাবতই হাসির রোল উঠেছে নেট দুনিয়ায়।

উল্লেখ্য, এদিনের বিবৃতিতে পাকিস্তানকে সমর্থন করার পাশাপাশি আমেরিকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন চীনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র। আমেরিকায় জনপ্রিয় অ্যাপ “টিক টক” নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ায় প্রভূত ব্যবসায়িক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে চীন। আমেরিকার প্রতি কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেছেন, জাতীয় সুরক্ষা দোহাই দিয়ে অন্যদেশের সংস্থাগুলির ব্যবসার উপর সরকারি ক্ষমতা প্রয়োগ করতে চাইছে আমেরিকা। চিন আমেরিকার এই পদক্ষেপ কোনোভাবেই সমর্থন করে না।