এবার উত্তর ভারতে তৈরি হতে পারে বিশাল জলসঙ্কট, ব্রক্ষ্মপুত্রের উৎস স্থলে বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা চীনের

16
এবার উত্তর ভারতে তৈরি হতে পারে বিশাল জলসঙ্কট, ব্রক্ষ্মপুত্রের উৎস স্থলে বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা চীনের

এবার তিব্বত সীমান্ত দেখা যাচ্ছে চীনের দাদাগিরি। ইয়ারলাং জ্যাংবো নদীর উপরে এক বিশাল বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে তারা। যার ফলে উত্তর ভারতে তৈরি হতে পারে বিশাল জলসঙ্কট। সম্প্রতি চীনের সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গেছে খবর। আসলে ইয়ারলাং জ্যাংবো নদী যার উৎস স্থল তিব্বত, এই নদী যেটা অরুণাচল প্রবেশ করে নাম হয়েছে সিয়াং ও অসমে প্রবেশ করেই যার নাম হয়েছে ব্রক্ষ্মপুত্র নদ। এবার এই নদীর ওপর এই তিন এক বিশাল বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। চীন দেশের সংবাদ মাধ্যমের দ্বারা জানা গেছে, চীন অরুণাচল সীমান্তের কাছাকাছি মেডগ কাউন্টিতে বাঁধ দেওয়ার পরিকল্পনা চালাচ্ছে।

এটা অবশ্য নতুন নয় ব্রম্মপুত্রের উপরে চীন অনেক আগেই ছোট ছোট বাঁধ দিয়েছে। তবে এবারের বাধ মধ্য চীনের থ্রি গর্জেস বাঁধের থেকেও তিন গুণ বড় হতে পারে। তাছাড়া বিশ্বের বৃহত্তম জলবিদ্যুৎ প্রকল্প হিসেবেও চীন দেখছে একে। তবে সংবাদ মাধ্যম সূত্রে আরো জানা গেছে, আসলে জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষার কারণেই চীনের এই সিদ্ধান্ত। এই নিয়ে ইয়্যান ঝিওং জানিয়েছেন, ইতিহাসের এমন কোন প্রকল্পের উল্লেখ নেই, যেটা এবার চীন সুযোগ পেয়েছে।

আসলে প্রধান কারণ জলবিদ্যুৎ উৎপাদন হলেও, জাতীয় নিরাপত্তা, পরিবেশ সংরক্ষণ, জীবনযাপনের মনোনয়ন ও শক্তি উৎপাদন মূল লক্ষ্য। তিনি আরো জানিয়েছেন, ইয়ারলাং জ্যাংবো নদীর উপরে যে বাঁধ তৈরি করা হবে সেখানে ৬০০ কোটি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। যার ফলে ৩০০ কোটি কিলোওয়াট পুনর্ব্যবহারযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাবে।

আসলে অনেক আগেই বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিল ভারতের থেকে চীন অনেকটাই সুবিধা যোগ্য জায়গায় অবস্থান করছে, কারণ একটাই সীমান্তবর্তী অতিক্রমকারী একাধিক নদী। ভারতের বিশেষ প্রধান নদী গুলোর উৎস স্থল তিব্বতের মধ্যেই। যা চীনের কব্জায়, গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র থেকে শুরু করে আরো অনেক নদী। তাই দুই দেশের মধ্যে এখন যা কূটনৈতিক সম্পর্ক, তাতে মনে হয় না চিন আগের কথা রাখবে।