দলে রক্তের সম্পর্ক স্থাপন করতে গিয়ে পুরাতন নেতা-নেত্রীদের উপেক্ষা করছেন মুখ্যমন্ত্রীঃ শোভন চট্টোপাধ্যায়

8
দলে রক্তের সম্পর্ক স্থাপন করতে গিয়ে পুরাতন নেতা-নেত্রীদের উপেক্ষা করছেন মুখ্যমন্ত্রীঃ শোভন চট্টোপাধ্যায়

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে রাজ্যজুড়ে যে দলবদলের মরসুম চালু হয়েছে, সেই মরসুমে রাজ্য শাসকদলের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে এবং দলের প্রতি একাধিক অভিযোগ তুলে বিরোধী বিজেপি শিবিরে যোগদান করেছেন বহু নেতাকর্মী, বিধায়ক, সাংসদ। এদের মধ্যে অন্যতম হলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। একসময় বেহালায় তৃণমূলের দাপুটে নেতা ছিলেন তিনি। তবে দলের প্রতি তার ক্ষোভ তাকে গেরুয়া শিবিরের সদস্য বানিয়ে ফেলেছে।

দলের প্রতি তার একাধিক অভিযোগের মধ্যে অন্যতম অভিযোগ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি। তৃণমূল নেত্রী দলে “রক্তের সম্পর্ক” স্থাপন করতে গিয়ে কার্যত দলের পুরাতন নেতা-নেত্রীদের উপেক্ষা করছেন! সম্প্রতি তৃণমূল সুপ্রিমোর বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ তুললেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এদিন তার নিশানায় ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

বিজেপির নেতৃত্বে বেলেঘাটায় একটি পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সেখান থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। তার বক্তব্য অনুসারে, “দলে রক্তের সম্পর্ক স্থাপন করতে গিয়ে যারা এতদিন নিজেদের ঘাম, রক্ত ঝরিয়ে কঠোর পরিশ্রম করে দলটাকে প্রতিষ্ঠা করেছেন, তাদেরই দল থেকে বের করে দিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর জবাব রাজ্যের মানুষ দেবেন!”

তৃণমূল বিরোধী শোভন চট্টোপাধ্যায় আরও বলেছেন, “আমি দল ছেড়ে বেরিয়ে আসার পর যারা কলকাতা পুরসভার দায়িত্ব নিয়েছেন, নির্বাচন শেষ হওয়ার পর রাজ্যের মানুষ তাদের সেই দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেবেন!” বলাবাহুল্য, এই বক্তব্যের মাধ্যমে তিনি কার্যত কলকাতা পুরসভার চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিমকেই কটাক্ষ করেছেন। এদিন তিনি বলেছেন, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যবাসীই মমতা সরকারকে “ধাক্কা দিয়ে” দূরে সরিয়ে দেবেন।