শিশুকে বাইক বা স্কুটারে বসানোর আগে কেনে নিন এই নিয়ম গুলি

3
শিশুকে বাইক বা স্কুটারে বসানোর আগে কেনে নিন এই নিয়ম গুলি

মোটরভেহিকেল আইনের ১২৯ ধারায় কিছু সংশোধন করা হয়েছে। এই সংস্কার মোটর যান আইন ২০১৯ সংক্রান্ত। এই ধারায় একটি বিধান রয়েছে যে কেন্দ্রীয় সরকার, তার নিয়ম অনুসারে, চার বছরের কম বয়সী শিশুদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে পারে যারা মোটর সাইকেল চালাচ্ছে বা বহন করছে। শিশুকে বাইক বা স্কুটারে বসানোর ক্ষেত্রে যে যে নিয়মগুলো মানতে হতে পারে তারই বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া হয়েছে। এই বিধান মাথায় রেখেই নতুন কিছু নিয়ম দিয়েছে সরকার। যদিও এগুলি এখন খসড়া বিধি, তবে এগুলি বিভিন্ন দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ৷

সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক এর খসড়া বিধিমালা তৈরি করেছে, যাতে অনেকগুলি সুপারিশ করা হয়েছে। এই খসড়া বিধি সরকারের সবুজ সংকেত পেলে সেটি কার্যকর করা হবে। মন্ত্রকের সুপারিশে বলা হয়েছে, “চার বছরের কম বয়সী শিশুদের মোটরসাইকেল চালকের সঙ্গে সংযুক্ত করতে নিরাপত্তা সরঞ্জাম ব্যবহার করা হবে”। এখানে হেলমেটকে সেফটি ডিভাইস হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

সুপারিশে বলা হয়েছে যে একজন মোটরসাইকেল চালককে নিশ্চিত করতে হবে যে তার পিছনে বসা ৯ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুরা তার মাথায় ফিট করা ক্র্যাশ হেলমেট পরবে। শিশুটি যে হেলমেটটি পরবে তার মান BIS(ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস ) -এর গাইডলাইনের সঙ্গে মিলতে হবে। তা না করলে চালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। ক্র্যাশ হেলমেটটি ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস অ্যাক্ট ২০১৬ এবং [ইউরোপীয় (CEN) BS EN 1080 / BS EN 1078-এর অধীনে নির্ধারিত নির্দেশিকাগুলি মেনে চলতে বলা হয়৷ পিলিয়ন হিসাবে (চালকের পিছনে থাকা) চার বছর বয়স পর্যন্ত একটি শিশুকে বহনকারী মোটরসাইকেলের গতি প্রতি ঘন্টায় ৪০ কিলোমিটারের বেশি হবে না।

কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী নীতিন গড়করি এ নিয়ে একটি টুইট করেছেন। এতে বলা হয়েছে যে শিশুটিকে ড্রাইভারের সঙ্গে সংযুক্ত করার জন্য একটি সেফটি ডিভাইস প্রয়োজন। এই সেফটি ডিভাইস দুটিকে সংযুক্ত রাখবে যাতে শিশু মোটরসাইকেল চালানোর সময় কোনোভাবেই পড়ে না যায়। যদি শিশু ৯ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী হয়, তাহলে ক্র্যাশ হেলমেট পরতে হবে। এমনকি বাইকের গতিও ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে রাখতে হবে।

সেফটি হারনেস সম্পর্কে বলা হয়েছে, এটি বিআইএস-এর সব নিয়ম অনুযায়ী হতে হবে। ওজনে হালকা এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে। এটি জলরোধী এবং টেকসইও হতে হবে। সুরক্ষা সরঞ্জামগুলি শক্তিশালী বাবল-সহ ভারি নাইলন বা মাল্টিফিলামেন্ট নাইলন দিয়ে তৈরি করা উচিত। সুরক্ষা ডিভাইসটি এমন শক্তিশালী হওয়া উচিত যাতে সহজেই ৩০ কেজি পর্যন্ত ওজন বহন করা যায়। এই খসড়া নিয়মের বিষয়ে কারও কোনো পরামর্শ বা আপত্তি থাকলে তা ইমেইলের মাধ্যমে জানানো যাবে বলে জানিয়েছে পরিবহণ মন্ত্রক।