ত্রিপুরার নির্বাচনী খেলায় নিজেকে লাইন্সম্যানের ভূমিকায় ঘোষণা করলেন ব্রাত্য বসু

12
ত্রিপুরার নির্বাচনী খেলায় নিজেকে লাইন্সম্যানের ভূমিকায় ঘোষণা করলেন ব্রাত্য বসু

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর রাজ্য শাসকদলের নজরে এখন ত্রিপুরাসহ অন্যান্য বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি রয়েছে। গতকাল রাজ্যজুড়ে খেলা হবে দিবস পালন করেছে তৃণমূল। এই রাজ্যের পাশাপাশি সমগ্র দেশ জুড়েও খেলা হবে দিবস পালন করার লক্ষ্য রেখেছিল তৃণমূল। বাংলায় বিজেপিকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতা দখল করেছে রাজ্য শাসকদল। শাসকদলের নজরে এখন ত্রিপুরা।

আর আসন্ন নির্বাচনে ত্রিপুরাতে যে খেলা হবে সেই খেলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হবেন মারাদোনা, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় হবেন মেসি, আর ব্রাত্য বসু নিজে হবেন লাইন্সম্যান। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ ত্রিপুরাতে নির্বাচনী খেলার নেপথ্যে থেকে কারিগরের ভূমিকা নিতে চলেছেন ব্রাত্য বসু। তার এই বক্তব্য থেকে তা বেশ স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

নন্দীগ্রাম, সিঙ্গুর আন্দোলেন সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে রাজনীতিতে পদার্পণ করেছিলেন ব্রাত্য বসু। ২০১১ এর প্রথম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জিতেও ছিলেন। তিনি আজীবন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের কান্ডারী হিসেবেই কাজ করে যেতে চান। দলের নির্দেশ নিষ্ঠাভরে পালন করতে চান। তাই ত্রিপুরার আসন্ন নির্বাচনে তিনি কারিগর হিসেবে নেপথ্যে খেলে যাবেন।

রাজ্য শাসকদলের নজর এখন শুধু ত্রিপুরার উপরেই নয়, উত্তরপ্রদেশের উপরেও রয়েছে। ২০২৩-এ ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচন। ব্রাত্য বসুর দাবি, ত্রিপুরাতে তৃণমূলের অবস্থান তাদের পক্ষে রয়েছে। কারণ বিজেপি শাসিত ত্রিপুরাতে কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, শিক্ষাশ্রীর মতো কোনও প্রকল্প নেই। এমনকি কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের সুবিধাও সেখানে মেলেনা। অতএব ত্রিপুরার খেলাতে তৃণমূল বেশ আশাবাদী।