৪৪ জন কৃষককে নৃশংস ভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শিরচ্ছেদ করলো বোকো হারাম জঙ্গিরা

12
৪৪ জন কৃষককে নৃশংস ভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শিরচ্ছেদ করলো বোকো হারাম জঙ্গিরা

নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত বোর্নো (Borno) প্রদেশের গারিন কায়াসহেবে গ্রামে বোকো হারাম জঙ্গিদের ভয়াবহ নৃশংসতা আরও একবার প্রকাশ্যে এলো। এক সঙ্গে ৪৪ জন নিরীহ কৃষককে নৃশংস ভাবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শিরচ্ছেদ করে খুন করলো জঙ্গীরা। জখম আরও অনেকে। খবর পেয়েই স্থানীয় প্রশাসনিক আধিকারিরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছান। তখন অবশ্য জঙ্গীরা এলাকা‌ ছেড়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয়দের তরফ থেকে জানা গেল, গত শনিবার গারিন কায়াসহেবে গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি যখন ঘটে তখন ওই গ্রামেরই একটি জমিতে কাজ করছিলেন তারা। সেই সময় বোকো হারাম জঙ্গিরা কৃষকদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালায়। কৃষকদের এক জায়গায় জড়ো করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়। অন্তত ৪৪ জনকে ঘটনাস্থলেই‌ শিরচ্ছেদ করে খুন করা হয়েছে।

এরপর স্থানীয় প্রশাসন ঘটনাস্থলে পৌঁছলে দুষ্কৃতিরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। জখমদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আহমেদ সাতোমিও জানিয়েছেন, ঘটনার পর ঐ স্থানে প্রচুর নিরাপত্তারক্ষী পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানালেন, ওই দুষ্কৃতীদের খোঁজ চলছে। তবে এখনো পর্যন্ত কারোকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। উল্লেখ্য, এই হামলা বোর্নো প্রদেশের জঙ্গী হামলার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। ইতিপূর্বে বোর্নো প্রদেশেও জঙ্গীরা ঠিক একইভাবে হামলা চালিয়েছিলো। রাষ্ট্রসংঘের তরফ থেকেও বোকো হারাম ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন নিয়ে ভয়ঙ্কর তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে নাইজার, চাদ ও ক্যামেরুন এবং নাইজেরিয়াতে এভাবেই হামলা চালাচ্ছে এই সংগঠন। শুধু নাইজেরিয়াতেই ৩০ হাজারের বেশি মানুষকে হত্যা করা হয়েছে, ঘর ছেড়েছেন ৩০ লক্ষ মানুষ!