একুশের বিধানসভায় নয়া কৌশল বিজেপির, নির্বাচনের আগে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার পরিকল্পনা

27
একুশের বিধানসভায় নয়া কৌশল বিজেপির, নির্বাচনের আগে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার পরিকল্পনা

সামনেই একুশের বিধানসভা নির্বাচন। অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গও এখন পাখির চোখ কেন্দ্রীয় শাসক দলের। এদিকে কোনো অবস্থাতেই পশ্চিমবঙ্গ হাতছাড়া করতে রাজি নন তৃণমূল সুপ্রিমো। ফলে একুশের বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কার্যত বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে। তবে বিধানসভা নির্বাচনে জিততে এবার অন্যরকমভাবে ঘুঁটি সাজানোর পরিকল্পনা করছে বিজেপি। বিজেপির পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্বাচনের আগে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হতে পারে।

মঙ্গলবার বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার সঙ্গে দিল্লিতে বৈঠক করেন রাজ্যের তিন বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, রাহুল সিনহা এবং বিজেপির  দায়িত্বপ্রাপ্ত সর্বভারতীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, অরবিন্দ মেনন এবং শিবপ্রকাশ। এই দিনের বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সাথে তারা পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে আলোচনা করেন বলে জানা গেছে। এই বৈঠকে জে পি নাড্ডা পশ্চিমবঙ্গের রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার কথা তোলেন।

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বক্তব্য অনুযায়ী, তৃণমূল শাসকদের ভয়ে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ বিজেপিতে যোগ দিতে ভয় পাচ্ছেন। পশ্চিমবঙ্গে যদি রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হয়, তাহলে যে সকল মানুষ বিজেপি দলে যোগ দিতে চান, তারা অনেকেই তাদের পছন্দমতো দলে যোগ দিতে পারবেন। পাশাপাশি, রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হলে বিরোধীদের পুলিশ কেস দিতে পারবেনা রাজ্য। আবার, রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হলে তৃণমূলের স্তুতি ছেড়ে, বিজেপি নেতাদের সাহায্য করতে বাধ্য থাকবে পুলিশ।

উল্লেখ্য, রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা তার অভাবকে কেন্দ্র করেই তৃণমূলকে তোপ দাগছে বিজেপি। গতকালই রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন বলে জানা গেছে। যেখানে তিনি রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে কেন্দ্রের কাছে নালিশ জানিয়েছেন। পাশাপাশি রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ও কিছুদিন আগে জানিয়েছিলেন, রাজ্যের মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে একুশের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন তার জন্য সব রকম ব্যবস্থা করবেন তিনি। তার এই বক্তব্য কার্যত পশ্চিমবঙ্গে আগামী দিনে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হওয়ার দিকেই ইঙ্গিত দিচ্ছে।