জঙ্গলমহল উৎসব ঘিরে রাজনৈতিক তরজা, আমন্ত্রন ছাড়াই উৎসব প্রাঙ্গণে উপস্থিত বিজেপি সাংসদ কুনাল হেমব্রম

6
জঙ্গলমহল উৎসব ঘিরে রাজনৈতিক তরজা, আমন্ত্রন ছাড়াই উৎসব প্রাঙ্গণে উপস্থিত বিজেপি সাংসদ কুনাল হেমব্রম

পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন পর্ষদ এবং পশ্চিমাঞ্চল বিষয়ক দপ্তরের উদ্যোগে সম্প্রতি ঝাড়গ্রামে সপ্তম জঙ্গলমহল উৎসব অনুষ্ঠিত হলো। আগামী ২৮ তারিখ পর্যন্ত এই উৎসব চলবে বলে জানানো হয়েছে। ঝাড়গ্রামের ননীবালা বিদ্যালয়ের মাঠে চলতি বছরের জঙ্গলমহল উৎসবটি পালিত হয়েছে। তবে এই উৎসব ঘিরেও রাজনৈতিক তরজা অব্যাহত। জঙ্গলমহল উৎসবের শুরুর দিনেই এই উৎসবকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে।

ঝাড়গ্রামের বিজেপির সাংসদ কুনাল হেমব্রম অভিযোগ করছেন, উৎসবের সূচনার সময় তিনি উৎসব প্রাঙ্গণে উপস্থিত থাকলেও তাকে উপেক্ষা করা হয়েছে। অভিযোগ, এদিন বেলা তিনটে নাগাদ উৎসবের সূচনা হওয়ার কথা ছিল। সেইমতো উৎসব প্রাঙ্গণে পৌঁছে গিয়েছিলেন কুনাল হেমব্রম। যদিও তাকে অবশ্য উৎসবে উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি। তবুও তিনি নিজে থেকেই উৎসব প্রাঙ্গণে উপস্থিত হন।

তবে উৎসবের আয়োজন কর্তারা কেউ তাকে অভ্যর্থনা জানান নি। নিদেনপক্ষে তাকে বসার আসনও এগিয়ে দেওয়া হয়নি। তিনি কিছুক্ষণ উৎসব প্রাঙ্গণে ঘোরাঘুরি করে শেষমেষ দর্শকের আসনে বসে পড়েন। এখানেই শেষ নয়, বিজেপি সাংসদের অভিযোগ তিনি সভায় উপস্থিত ছিলেন বলেই প্রশাসনিক আধিকারিকেরা উৎসবের উদ্বোধন করতে পারছিলেন না। তিনটের জায়গায় চারটে বেজে গেলেও উৎসবের সূচনা করা হয়নি।

শেষমেষ উৎসব ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন বিজেপি সাংসদ। যাওয়ার আগে তিনি বলে যান, “আমি উপস্থিত আছি বলেই নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও উৎসবের সূচনা করা যাচ্ছে না!” তিনি আরও বলেছেন, তার উপস্থিতির দরুন অন্যান্য মন্ত্রীরা সভায় আসতে পারছেন না। উৎসবের সূচনা করা যাচ্ছে না। ঝাড়গ্রামের বাসিন্দাদের আনন্দ তিনি মাটি করতে চান না। তাই শেষমেষ সভা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তই গ্রহণ করলেন কুনাল হেমব্রম।