বড় প্যাকেজ ঘোষণা গরীব, মধ্যবিত্তদের সহ বিভিন্ন শিল্পে অর্থমন্ত্রীর, স্বস্তি দেশবাসীর

78
বড় প্যাকেজ ঘোষণা গরীব, মধ্যবিত্তদের সহ বিভিন্ন শিল্পে অর্থমন্ত্রীর, স্বস্তি দেশবাসীর

গতকাল প্রধানমন্ত্রী একটি আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন, কিন্তু বিস্তারে কিছুই জানায় নি। তিনি বলেছিলেন আগামী কয়েকদিন ধরে অর্থমন্ত্রী সবটাই বিস্তারে জানাবেন, তাই আজ অর্থমন্ত্রী সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, কোন কোন খাতে কিভাবে ব্যবহার হবে টাকা। আজকের যে ঘোষণা করা হয়েছে, সেখানে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, ক্ষুদ্র, মাঝারি, অতি ক্ষুদ্র শিল্পের সম্পর্কে। সেখানে ৬ টি ধাপ হিসেবে আর্থিক সাহায্য করা হবে। এই খাতে সেখানে মোট ৩ লক্ষ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে।

এখানেই শেষ না, রিয়েল এস্টেট, ঠিকাদার, ইফিএফ, টিডাএসের ক্ষেত্রেও নজর দেওয়া হয়েছে, সেখানে কম টাকা কেটে হাতে বেশী টাকা দেওয়ার সুবিধা করেছে। এই সিদ্ধান্তে অনেকটাই স্বস্তির বার্তা দিয়েছে আর্থিক বিশেষজ্ঞরা। এখন দেশে চলছে তৃতীয় দফার লক ডাউন, আর সেই কারণেই সব থেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ক্ষুদ্র, মাঝারী শিল্প।

এবার তাদের চাঙ্গা করতেই ৩ লক্ষ কোটি টাকার বরাদ্দ করা হয়েছে প্যাকেজে। তারা যাতে ঋণ নিয়ে তাদের ব্যবসার কাজে লাগাতে পারে সেটার জন্য সরকার তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। ব্যাঙ্ক থেকে ৪ বছরের জন্য ঋণ নিতে পারবে এই সংস্হাগুলো। তাদের প্রথম বছর ঋণের টাকা দেওয়ার দরকার পরবে না, এখানে ঋণের ক্ষেত্রে সরকার গ্যারান্টি দেবে ,কারণ এখানে গ্যারান্টার হিসেবে থাকবে সরকার।

আগামী তিন মাস চাকরিদাতাদের জন্য ইপিএফ-এর ১২ শতাংশ দিতে হবে না, দিতে হবে ১০ শতাংশ।

২০০ কোটি পর্যন্ত সরকারি টেন্ডারে ‘গ্লোবাল টেন্ডার’ করা হবে না।

উৎপাদন শিল্পে মাইক্রো ইন্ডাস্ট্রির ক্ষেত্রে আগে ২৫ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ ছিল, এখন সেটা বাড়িয়ে করা হয়েছে এক কোটি টাকা পর্যন্ত

আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার সময় বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর ২০২০ পর্যন্ত করা হবে ।

আগামিকাল থেকে ৩১ মার্চ ২০২১ পর্যন্ত টিডিএস ও টিডিএস কমানো হচ্ছে ২৫ শতাংশ ।

রেল, রাস্তা বা অন্য কোনও ক্ষেত্রে যে সব ঠিকাদাররা সরকারি কাজ করছেন, তাঁদের কাজ শেষ করার জন্য ৩ থেকে ৬ মাস বাড়ানো হচ্ছে।

রিয়েল এস্টেটের ক্ষেত্রে যে সব প্রকল্প চলছে, সেগুলির মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়িয়ে দেওয়া হবে ।

যারা সরকারি রাস্তা, রেল ও বিভিন্ন কাজের সাথে যুক্ত এই সব সংস্থার জন্য ৯০ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ দেওয়া হবে।

নন ব্যাঙ্কিং ফাইনান্সিয়াল কোম্পানিজ (এনবিএফসি)-এর ক্ষেত্রে বহু সংস্থা বিরাট সমস্যার মুখে পড়েছে, হাউসিং ফাইনান্স এবং মাইক্রোফাইনান্স সংস্থাও সমস্যায় পড়েছে, তাদের জন্য ভাবা হয়েছে।

ইপিএফ থেকে টাকা তোলার সুবিধা পাবেন এই ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিকরা ।

৫০ হাজার কোটি টাকার তহবিল তৈরি করা হয়েছে যা অপেক্ষাকৃত সক্ষম ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য দেওয়া হবে ।

এক কোটি এবং টার্নওভার ৫০০ কোটি টাকা হলেও এখন থেকে সেই সংস্থাকে মাইক্রো ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে ধরা হবে।

২০ হাজার কোটি নগদ সাহায্য করা হবে দুর্বল ও ঋণগ্রস্ত সংস্হা গুলোকে।

মোট ১৫টি পদক্ষেপ করা হয়েছে, তার মধ্যে ৬টি পদক্ষেপ ক্ষুদ্র, মাঝারি ও অতিক্ষুদ্র শিল্পের জন্য।