বাসর রাতে ছাদ টপকে পালিয়ে গেল বউ! পুলিশের দ্বারস্থ পাত্রের পরিবার

37
বাসর রাতে ছাদ টপকে পালিয়ে গেল বউ! পুলিশের দ্বারস্থ পাত্রের পরিবার

করোনার এই পরিস্থিতির মধ্যেও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বিয়ের আয়োজন চলছে। সোশ্যাল মিডিয়ার এই যুগে বিয়ে নিয়ে কত রকম মজার অথবা অবাক করা ভিডিও কিংবা খবর নেটিজেনদের মাঝে রটে যাচ্ছে। এ রকমই একটি খবর সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। বিয়ের রাতে বউ গেল পালিয়ে! তাও আবার রীতিমতো ছাদ টপকে। শুধু তাই নয়, যাওয়ার সময় আবার শ্বশুরবাড়ি থেকে ৯০ হাজার টাকার নগদ নিয়ে পালিয়েছে সে! ঘটনা দেখে চক্ষুচড়কগাছ শ্বশুরবাড়ি সদস্যদের।

বউ পালিয়ে যাওয়াতে শেষমেষ পুলিশের দ্বারস্থ হন শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত চালিয়ে ৩ জনকে ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করে নিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও আরো দুইজনের নামে অভিযোগ দায়ের করা রয়েছে পুলিশ থানায়। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, পাত্র সোনু জৈনের দীর্ঘদিন ধরে বিয়ে হচ্ছিল না। বিয়ের জন্য পাত্রী খুঁজছিলেন তিনি। সেই সময় উদল খাটিক নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে তার আলাপ হয়।

ওই ব্যক্তি সোনুকে পাত্রী খুঁজে দেওয়ার আশ্বাস দেন। তবে তার জন্য তাকে ১ লক্ষ টাকা দিতে হবে বলে তিনি জানিয়েছিলেন। যুবক সেই প্রস্তাবে রাজি হয়ে গেলে অনিতা রত্নাকর নামের এক মহিলার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয় তাকে। অনিতার সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেওয়ার জন্য ৯০ হাজার টাকা ওই ব্যক্তির হাতে তুলে দেন সোনু। বিয়ের কথাবার্তা এগোনোর জন্য অরুণ খাটিক এবং জিতেন্দ্র রত্নাকর নামে আরও দু’জনের সঙ্গে আলাপ হয় পাত্রের পরিবারের।

এরপর নির্দিষ্ট দিনে অনিতার সঙ্গে সোনুর বিয়ে হয়ে যায়। তবে বিয়ের রাতে সকলে যখন ঘুমিয়ে পড়ে তখন অনিতা তার স্বামীকে জানায় যে তার শরীর খারাপ করছে। এরপর সে একাই ছাদে চলে যায়। তারপর থেকেই নববধূ বেপাত্তা। সারা বাড়িতে খোঁজ করেও নববধূর দেখা মেলেনি। আসলে ছাদ থেকে নিচে নেমে পালিয়ে গিয়েছিল অনিতা। ব্যাপারটি টের পাওয়া মাত্র পুলিশের দ্বারস্থ হন অভিযোগকারীরা। যার পরিপ্রেক্ষিতে 3 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।