আচমকা সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন বাংলাদেশি যাত্রীরা

13
আচমকা সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন বাংলাদেশি যাত্রীরা

কোনরকম আগাম পূর্বাভাস ছাড়াই ভারত-বাংলাদেশ পেট্রাপোল সীমান্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার। এর ফলে বাংলাদেশ থেকে যারা চিকিৎসার প্রয়োজনে বা অন্যান্য কারণে সম্প্রতি ভারতে এসেছিলেন, তারা চরম বিপাকে পড়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন ক্যান্সারাক্রান্তরা, রয়েছেন স্কুল পড়ুয়ারা! এমন বিপাকে পড়ে তারা বারংবার বাংলাদেশ সরকারের কাছে সাহায্যের আবেদন চাইছেন।

এই যাত্রীরা প্রত্যেকেই মেডিকেল ভিসায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে এসেছিলেন। এদিকে ভিসার মেয়াদ অনেকেরই ফুরিয়ে এসেছে। টাকা পয়সাও শেষ হয়ে এসেছে। দেশে ফিরতে না পারলে সকলকে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তেই না খেয়ে মরতে হবে! এই অসুবিধার সম্মুখীন হয় সোমবার বাংলাদেশের বাসিন্দারা ভারত-বাংলাদেশ পেট্রাপোল সীমান্তে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

প্রায় কয়েকশো বাংলাদেশী নাগরিক ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে অবস্থান-বিক্ষোভ করছেন। সোমবার সন্ধ্যার পর থেকেই তাদের এই বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত বাংলাদেশে করোনা সংক্রমনের হার দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ায় ২৬শে এপ্রিল থেকে ৯ই মে পর্যন্ত যাত্রী পারাপার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার। সোমবার আচমকাই বাংলাদেশ সরকারের তরফ থেকে এই নির্দেশিকা লাগু করা হয়েছে।

এর ফলে বাংলাদেশের নাগরিক যারা ভারতে এসেছিলেন, তারা কেউই আর দেশে ফিরতে পারছেন না। এই বিক্ষোভকারীদের মধ্যে বেশ কয়েকজন রোগী এবং স্কুলপড়ুয়া রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। তাদের দাবি, “প্রয়োজনে জোর করে দেশে প্রবেশ করতে গিয়ে গুলি খেয়ে মরব তাও ভাল! তবে এভাবে বিদেশে না খেয়ে মরতে রাজি নই!”